পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ঊনবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৩৯৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


*Obrè রবীন্দ্র-রচনাবলী হচ্ছে তার সঙ্গে যদি কেবলই খিটমিটি বাধতে থাকে তা হলে তার মতো জীবনের বাধা আর কিছু নেই। যদি ভালোবাসা হয় তা হলেই তার সঙ্গে সম্বন্ধের মধ্যে মুক্তি ঘটে। সে মুক্তি বাইরের সমস্ত দুঃখ-অভাবের উপর জয়ী হয়। এইজন্যেই মেয়ের জীবনে সকলের চেয়ে বড়ো সার্থকতা হচ্ছে প্রেমে। এই প্রেমে সে স্থিতির বন্ধনরূপ ঘুচিয়ে দেয় ; বাইরের অবস্থার সমস্ত শাসনকে ছাড়িয়ে যেতে পারে। মুক্তি না হলে কর্ম হতে পারে কিন্তু স্বষ্টি হতে পারে না । মানুষের মধ্যে সকলের চেয়ে চরমশক্তি হচ্ছে স্বষ্টিশক্তি । মানুষের সত্যকার আশ্রয় হচ্ছে আপনার স্বাক্টর মধ্যে ; তার থেকে দৈন্তবশত যে বঞ্চিত সে ‘পরাবসথশায়ী । মেয়েকেও স্বষ্টি করতে হবে, তবে সে আপনার বাসা পাবে। তার পক্ষে এই স্বাক্ট প্রেমের দ্বারাই সম্ভব। ষে-পুরুষসন্ন্যাসী নিজের কৃচ্ছ্বসাধনের প্রবল দম্ভে মনে করে যে, যেহেতু মেয়েরা সংসারে থাকে এই জন্যে তাদের মুক্তি নেই, সে সত্যকে জানে না । ষে মেয়ের মধ্যে সত্য আছে সে আপন বন্ধনকে স্বীকার করেই প্রেমের দ্বারা তাকে অতিক্রম করে ; বন্ধনকে ত্যাগ করার চেয়ে এই মুক্তি বড়ো। সব মেয়েই ষে তার জীবনের সার্থকতা পায় তা নয় ; সব পুরুষই কি পায়। অনুরাগের সত্যশক্তি সব মেয়ের নেই, বৈরাগ্যের সত্যশক্তি সব পুরুষে মেলে না। কিন্তু, অন্তত আমাদের দেশে দেখা যায়, পুরুষ সাধক সংসারকে বন্ধনশালা বলেই জানে ; তার থেকে উর্ধ্বশ্বাসে বহুদূরে পালিয়ে যাওয়াকেই মুক্তির উপায় মনে করে। তার মানে, আমরা যাকে সংসার বলি স্বভাবত সেটা পুরুষের স্বষ্টিক্ষেত্র নয়। এইজন্তে সেখানে পুরুষের মন ছাড়া পায় না। মেয়েরা যখনই মাতৃত্বের অধিকার পেয়েছে তখনই এমন-সকল হৃদয়বৃত্তি পেয়েছে যাতে করে সংসারের সঙ্গে সম্বন্ধস্থাপন তাদের পক্ষে সহজ হতে পারে। এই জন্যে ষে-মেয়ের মধ্যে সেই হৃদয়বৃত্তির উৎকর্ষ আছে সে আপনার ঘরসংসারকে স্বষ্টি করে তোলে। এ স্থষ্টি তেমনই যেমন স্বাক্ট কাব্য, যেমন স্বষ্টি সংগীত, যেমন স্বষ্টি রাজ্যসাম্রাজ্য। এতে কত স্ববুদ্ধি, কত নৈপুণ্য, কত ত্যাগ, কত আত্মসংযম পরিপূর্ণভাবে সম্মিলিত হয়ে অপরূপ স্বসংগতি লাভ করেছে। বিচিত্রের এই সন্মিলন একটি অখণ্ডক্সপের ঐক্য পেয়েছে ; তাকেই বলে স্বষ্টি । এই কারণেই ঘরকন্নায় মেয়েদের এত একান্ত প্রয়োজম ; নির্ভরের জন্তে নয়, আরামের জন্তে নয়, ভোগের জন্তে নয়— মুক্তির জন্যে। কেননা, আত্মপ্রকাশের পূর্ণতাতেই মুক্তি । পূর্বেই বলেছি, মেয়েদের এই স্বাক্টর কেন্দ্রগত জ্যোতির উৎস হচ্ছে প্রেম। এই প্রেম নিজের ফুতির জন্তে, সার্থকতার জন্তে, যাকে চায় সেই জিনিসটি হচ্ছে মানুষের সঙ্গ। প্রেমের স্বষ্টিক্ষেত্র নিঃসঙ্গ নির্জনে হতেই পারে না, সে ক্ষেত্র সংসারে । ব্ৰহ্মার