পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ঊনবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৪০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রবীন্দ্র রচনাবলী স্তুতি নিন্দ সেথায় সমান, ভেদহীন মন্দ ভালো, দুঃখস্থখভঙ্গী অর্থহীন, তুল্য অন্ধকার আলো, লুপ্ত লজ্জাভয়ের ব্যঞ্জনা । যুদ্ধে উদ্ধারিয়া সীতা পরক্ষণে প্রিয়হস্ত রচিতে বসিল তার চিতা ; সে পালার অবসানে নিঃশেষে হয়েছে নিরর্থক সে দুঃসহ দুঃখদাহ— শুধু তারে কবির নাটক কাব্যডোরে বাধিয়াছে, শুধু তারে ঘোষিতেছে গান, শিল্পের কলায় শুধু রচে তাহা আনন্দের দান । २ জনশূন্ত ভাঙাঘাটে আজি বৃদ্ধ বটচ্ছায়াতলে গোধূলির শেষ আলো আষাঢ়ে ধূসর নদীজলে মগ্ন হল । ওপারের লোকালয় মরীচিকাসম চক্ষে ভাসে। একা বসে দেখিতেছি মনে মনে, মম দূর আপনার ছবি নাট্যের প্রথম অক্ষভাগে কালের লীলায়। সেদিনের সদ্য-জাগা চক্ষে জাগে অস্পষ্ট কী প্রত্যাশার অরুণিম প্রথম উন্মেষ ; সম্মুখে সে চলেছিল, না জানিয়া শেষের উদ্দেশ, নেপথ্যের প্রেরণায়। জানা না-জানার মধ্যসেতু নিত্য পার হতেছিল কিছু তার না বুঝিয়া হেতু । অকস্মাৎ পথমাঝে কে তারে ভেটিল একদিন, দুই অজানার মাঝে দেশকাল হইল বিলীন সীমাহীন নিমেষেই ; পরিব্যাপ্ত হল জানাশোনা জীবনের দিগন্ত পারায়ে । ছায়ায়-আলোয়-বোন৷ আতপ্ত ফাঙ্কনদিনে মর্মরিত চাঞ্চল্যের শ্রোতে কুঞ্জপথে মেলিল সে ফুরিত অঞ্চলতল হতে কনকটাপার আভা । গন্ধে শিহরিয়া গেল হাওয়া শিথিল কেশের স্পর্শে । দুজনে করিল আসাষাওয়া অজানা অধীরতায় ।