পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ঊনবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৪৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বীথিক শ্যামলা হে শুামলা, চিত্তের গহনে আছ চুপ, মুখে তব স্বদূরের রূপ পড়িয়াছে ধরা সন্ধ্যার আকাশসম সকল-চঞ্চল চিন্তা-হুরা। আঁকা দেখি দৃষ্টিতে তোমার সমূত্রের পরপার, গোধূলিপ্রাস্তরপ্রান্তে ঘন কালো রেখাখানি ; অধরে তোমার বীণাপাণি রেখে দিয়ে বীণা তার নিশীথের রাগিণীতে দিতেছেন নি:শব্দ ঝংকার। অগীত সে স্বর মনে এনে দেয় কোন হিমাদ্রির শিখরে মুদূর হিমঘন তপস্তায় স্তন্ধলীন নিঝরের ধ্যান বাণীহীন । জলভারনত মেঘে তমালবনের পরে আছে লেগে সকরুণ ছায়া স্বগম্ভীর— তোমার ললাট-পরে সেই মায়া রহিয়াছে স্থির । ক্লান্ত-অশ্র রাধিকার বিরহের স্মৃতির গভীরে স্বপ্নময়ী যে যমুনা বহে ধীরে শাস্তধারা কলশব্দহীরা তাহারি বিষাদ কেন অতল গাম্ভীর্য ল'য়ে তোমার মাঝারে হেরি যেন । শ্রাবণে অপরাজিতা, চেয়ে দেখি তারে জাখি ডুবে যায় একেবারে— \O&