পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ঊনবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৪৮২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8ᏬᎽ রবীন্দ্র-রচনাবলী স্বর্ধের আলো ওরা ছিটিয়ে ছিটিয়ে দিচ্ছে, চঞ্চল ছেলেরা যেমন নদীর ঘাটে জল-ছোড়াছড়ি করে। সকালের আকাশে ওদের এই অবগাহনস্নান । এটা একজন চিনীয় ধনীর বাড়ি । আমরা তার অতিথি । প্রশস্ত বারান্দায় বেতের কেদারায় বসে আছি। সমুদ্রের দিক থেকে বুক ভরে বইছে পশ্চিমে হাওয়া । চেয়ে দেখছি, আকাশের কোণে কোণে দলভাঙা মেঘগুলি শ্রাবণের কালে উদি ছেড়ে ফেলেছে, এখন কিছুদিনের জন্তে সূর্যের আলোর সঙ্গে ওদের সন্ধি। আমার অস্পষ্ট ভাবনাগুলোর উপর ঝরে পড়ছে কম্পমান নারকেলপাতার ঝরঝর শব্দের বৃষ্টি, বালির উপর দিয়ে ভাটার সমূত্রের পিছু হটার শব্দ ওরই সঙ্গে একই মৃদুস্বরে মেলানো। ওদিকে পাশের ঘরে ধীরেন এসরাজ নিয়ে আপন মনে বাজিয়ে চলেছে— ভৈরে থেকে রামকেলি, রামকেলি থেকে ভৈরবী ; আস্তে আস্তে অকেজো মেঘের মতো খেয়ালের হাওয়ায় বদল হচ্ছে রাগিণীর আকৃতি। আজ সকালে মনটা যেন ভাটার সমুদ্র, তীরের দিক টানছে তাকে কোন দিকে তার ঠিকানা নেই। আপনাকে আপন সর্বাঙ্গে সর্বাস্ত:করণে ভরপুর মেলে দিয়ে বসে আছি, নিবিড় তরুপল্লবের শুামলতায় আবিষ্ট রোদ-পোয়ানো ওই ছোটো দ্বীপটির মতো । আমার মধ্যে এই ঘনীভূত অনুভবটিকে বলা যেতে পারে হওয়ার আনন্দ। রূপে রঙে আলোয় ধ্বনিতে আকাশে অবকাশে ভরে-ওঠা একটি মূর্তিমান সমগ্রতা আমার চিত্তের উপরে ঘা দিয়ে বলছে “আছি” ; তারই জগতে আমার চৈতন্য উছলে উঠছে ; সমুদ্রকল্পোলেরই মতো একতান শব্দ জাগছে, ওম, অর্থাৎ এই-ষে আমি। বিরাট একটা "না", ই-করা তার মুখগহ্বর, প্রকাও তার শূন্ত— তারই সামনে ওই নারকেলগাছ দাড়িয়ে, পাতা নেড়ে নেড়ে বলছে, এই-ষে আমি। দুঃসাহসিক সত্তার এই স্পর্ধা গভীর বিস্ময়ে বাজছে আমার মনে, আর ধীরেন ওই-যে ভৈরবীতে মীড় লাগিয়েছে সেও যেন বিশ্বসত্তার আত্মঘোষণ, আপন কম্পমান স্বরের ধ্বজাটিকে অসীম শূন্যের মাঝখানে তুলে ধরেছে। এই তো হল “হওয়া”। এইখানেই শেষ নেই। এর সঙ্গে আছে করা। সমুদ্র অাছে অস্তরে অস্তরে নিস্তব্ধ, কিন্তু তার উপরে উপরে উঠছে ঢেউ, চলছে জোয়ার ভাটা। জীবনে করার বিরাম নেই। এই করার দিকে কত প্রয়াস, কত উপকরণ, কত আবর্জনা । এরা সব জমে জমে কেবলই গণ্ডী হয়ে ওঠে, দেয়াল হয়ে দাড়ায় । এর বাহিরে সমগ্রতার ক্ষেত্ৰকে, অস্তরে পরিপূর্ণতার উপলব্ধিকে, টুকরো টুকরো করতে থাকে। অহমিকার উত্তেজনায় কর্ম উদ্ধত হয়ে, একান্ত হয়ে, আপনাকে সকলের আগে ঠেলে তোলে ; হওয়ার চেয়ে করা বড়ো হয়ে উঠতে চায়। এতে ক্লাস্তি, এতে অশান্তি,