পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ঊনবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৫৩২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


(է Ֆե» রবীন্দ্র-রচনাবলী পাহাড়ে যতটা শীও এখানে তার কাছ দিয়েও যায় না। আমরা আছি ভীমনট বলে এক ভদ্রলোকের আতিথ্যে । এর স্ত্রী অষ্ট্রিয়, ভিয়েনার মেয়ে । বাগান দিয়ে বেষ্টিত স্থঙ্কর বাড়িটি পাহাড়ের উপর। এখান থেকে ঠিক সামনেই দেখতে পাই নীল গিরিমণ্ডলীর কোলে বাণ্ডুঙ শহর। পাহাড়ের যে অঞ্জলির মধ্যে এই শহর, অনতিকাল আগে সেখানে সরোবর ছিল। কখন একসময় পাড়ি ধসে গিয়ে তার সমস্ত জল বেরিয়ে চলে গেছে। এতদিন ঘোরাঘুরির পরে এই সুন্দর নির্জন জায়গায় নিতৃত বাড়িতে এসে বড়ো আরাম বোধ হচ্ছে । I জাভাতে নামার পর থেকেই যিনি সমস্তক্ষণ অপ্রাস্ত যত্নে আমাদের সাহচর্য করে আসছেন তার নাম সামুয়েল কোপেরবরগ, । নামের মূল অর্থ হচ্ছে তামার পাহাড় । স্থনীতি সেই মানেটা নিয়ে তার নামের সংস্কৃত অনুবাদ করে দিয়েছেন তাম্রচূড়। আমাদের মহলে তার এই নামটিই চলে গিয়েছে, তিনি এতে আনন্দিত। লোকটির নাম বদলে তাকে স্বর্ণচূড় বলতে ইচ্ছে করে। কিসে আমাদের লেশমাত্র আরাম স্থবিধা বা দাবি পূর্ণ হতে পারে সেজন্তে তিনি অসাধারণ চিন্তা ও পরিশ্রম করেছেন। অরুত্রিম সৌহার্দ্য র্তার। দৈহিক পরিমাণে মানুষটি সংকীর্ণ, কিন্তু হৃদয়ের পরিমাণে খুব প্রশস্ত। এতকাল আমরা তাকে নানা সময়ে নানা উপলক্ষে দিনরাত ধরে দেখেছি— কখনো তার মধ্যে ঔদ্ধত্য বা ক্ষুদ্রতা বা অহমিকা দেখি নি। সব সময়েই দেখেছি, নিজেকে তিনি সকলের শেষে রেখেছেন । র্তার শরীর রুগ্ন ও দুর্বল, অথচ সেই রুগ্ন শরীরের জন্যে কোনোদিন কোনো বিশেষ সুবিধা দাবি করেন নি। সকলের সব হয়ে গিয়ে যেটুকু উদ্ভূত্ত সেইটুকুতেই তার অধিকার । অনেকের কাছে তিনি তর্জন সহ করেছেন কিন্তু তা নিয়ে কোনোদিন তার কাছ থেকে নালিশ বা কারো নিন্দে শুনি নি। ইংরিজি ভালো বলতে পারেন না, বুঝতেও বাধে। কিন্তু, কথায় বা না কুলোয় কাজে তার চতুগুণ পুষিয়ে দেন। কোথাও যাতায়াতের সময় মোটরগাড়িতে প্রথম প্রথম তিনি আমাদের সঙ্গ নিতেন, কিন্তু যেই দেখলেন, তার সঙ্গে আলাপ করা আমাদের পক্ষে কঠিন, অমনি অকুষ্ঠিত মনে নিজেকে সরিয়ে দিয়ে ইংরেজি-জান সঙ্গীদের জন্তে স্থান করে দিলেন । কিন্তু, এখন এমন হয়েছে, তিনি সঙ্গে না থাকলে কেবল যে অসুবিধা হয় তা নয়, আমার তো ভালোই লাগে না। আমাদের মানসম্মান-সুখস্বচ্ছন্নতার চিস্তায় তিনি নিজেকে এমন সম্পূর্ণ ঢেলে দিয়েছেন যে, তিনি একটু সরে গেলেই আমাদের বড়ো বেশি ফাক পড়ে । তার স্নিগ্ধ হৃদয়ের একটি লক্ষণ দেখে আমার ভারি ভালো লাগে– সর্বত্রই দেখি, শিশুদের তিনি বন্ধু। তারা ওঁকে নিজেদের সমবয়সী বলেই জানে। তার হৃদয়ের আর-একটি প্রমাণ, জাভার লোকদের তিনি