পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ঊনবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৫৪৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গ্রন্থপরিচয় (t:3 বৃথা হোক তবুও বৃথাই পথপানে ছোটো । স্বপ্ন স্বত ঘিরে ছিল রাতে, অৰসন্ন তারাদের সাথে মিলালো আলোকে অবগাহি । আয়ুক্ষীণ নিঃস্ব দীপগুলি নিশীথের স্মৃতি গেছে ভূলি, অন্ধ আঁখি শূন্তে আছে চাহি। ‘গোধূলি’ কবিতাটি ১৩৩৯ সালে কাতিকের ‘বিচিত্রা মাসিকপত্রে ঐনন্দলাল বস্থর একটি রঙিন চিত্র-সহ ‘প্রাসাদভবনে’ নামে প্রথম মুদ্রিত হয়। কবিতার শেষে সম্পাদকীয় মস্তব্যে জানা যায়, “এই কবিতা নন্দলালবাবুর ছবি দেখিয়া রবীন্দ্রনাথ লিথিয়াছেন। পঞ্চাশটি নূতন ছবি ও তদ্‌ষ্টে লিখিত কবির পঞ্চাশটি নূতন কবিতা শীঘ্রই ‘বিচিত্রিতা’ নামে বই আকারে বাহির হইবে।” ১৩৪০ সালে সেই কবিতার একত্রিশটি ‘বিচিত্রিতা’ গ্রন্থে সংকলিত হয়। বাকি কবিতার অধিকাংশই বীথিকায় চিত্রবিহীন আকারে মুদ্রিত হইয়াছে। ‘জয়ী কবিতাটি রচনার স্থান-কাল জানা যায় নাই। উহার প্রথম স্তবকটির আদিম পাঠ ( ও তাহার ইংরেজিরূপ ) পাণ্ডুলিপিতে পাওয়া গিয়াছে, রচনার স্থানকালের উল্লেখ-সহ নিয়ে মুদ্রিত হইল। কবিতাটি আবা-মারু জাহাজের জাপানি কাপ্তেন ও কর্মচারীদের জন্য স্বাক্ষরলিপি, একটি মরুভূমির ছবির ধারে লেখা। — রূপহীন, বর্ণহীন, স্তব্ধমরু, নাই শব্দস্বর— তৃষ্ণাতরবারি হাতে আসন মৃত্যুর— সে মহানৈঃশব্দ-মাঝে বেজে ওঠে মানবের বাণী, “বাধা নাহি মানি।” Oct. 25, 1927 Awa-Maru, Bay of Bengal ইহার একটি রূপান্তরিত পাঠ ১৩৪২ সালে বিবেকানন্দ ইনষ্টিটিউশন পত্রিকায় কবির হস্তলিপির প্রতিলিপিতে বাহির হইয়াছিল ; তারিখ ছিল : ১৮ চৈত্র ১৩৪১ । উভয় স্থলেই— “বাধা নাহি মানি।”—থাকায় এবং আভ্যন্তরিক প্রমাণে অনুমিত হয় ষে, বীথিকা গ্রন্থে মুদ্রিত— বাধা নাহি মানি’– ছাপার ভুল। তদনুযায়ী এই গ্রন্থের ১০৩-১০৪ পৃষ্ঠায় সংশোধন হইবে।