পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ঊনবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৬০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


@之 রবীন্দ্র-রচনাবলী সরোবর প্রশাস্ত নিশ্চল— বাহিরেতে নিস্তরঙ্গ, অস্তরেতে নিন্তব্ধ নিস্তল । চির-অতিথির মতো মহাবট আছে তীরে ; ভূরিপায়ী মূল তার অদৃশু গভীরে অনিঃশেষ রস করে পান, অজস্র পল্লবে তার করে স্তবগান । তোমারে তেমনি দেখি নির্বিকল অপ্ৰমত্ত পূর্ণতায়, হে প্রেয়সী, আছ অচঞ্চল । তুমি কর বরদান দেবীসম ধীর আবির্ভাবে নিরাসক্ত দাক্ষিণ্যের গম্ভীর প্রভাবে । তোমার সামৗপ্য সেই নিত্য চারি দিকে আকাশেই প্রকাশিত আত্মমহিমায় প্রশান্ত প্রভায় । তুমি আছ কাছে, সে আত্মবিস্তৃত কৃপা— চিত্ত তাহে পরিতৃপ্ত আছে । ঐশ্বৰ্যরহস্য যাহা তোমাতে বিরাজে একই কালে ধন সেই, দান সেই– ভেদ নেই মাঝে । ৪ অগস্ট ১৯৩২ ঈষৎ দয়া চক্ষে তোমার কিছু বা করুণ ভাসে, ওষ্ঠ তোমার কিছু কৌতুকে হাসে, মৌনে তোমার কিছু লাগে মৃদ্ধ স্বর। আলো-আঁধারের বন্ধনে আমি বাধা, আশানিরাশায় হৃদয়ে নিত্য ধাধা, সঙ্গ যা পাই তারি মাঝে রহে দূর ।