পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (একবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৪৫৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


छ्न्ण 8Հ5» এই দুর্বলতার মধ্যে যুক্তবর্ণ এসে দেখা দিল— নববর্ষার বারিসংঘাতে পড়ে মল্লিকা ঝরিয়া, সিক্তপবন স্বগন্ধে তারি কারুণ্যে উঠে ভরিয়া । তিন-তিন মাত্রায় যার গ্রন্থিযোজন এমন আর-একটি ছন্দের দৃষ্টান্ত দেখাই— আঁখির পাতায় নিবিড় কাজল গলিছে নয়ন সলিলে । অক্ষরসংখ্যা সমান রেখে এই দুটো পদে যুক্তবর্ণ যদি চড়াই তা হলে সেটা কেমন হয়— যেমন এক-এক সময়ে দেখা যায়, জোয়ান পুরুষ ক্ষীণ স্ত্রীর ঘাড়ে বোঝা চাপিয়ে পথে চলে নির্মমভাবে । প্রমাণ দিই— { } চক্ষুর পল্লবে নিবিড় কাজল গলিছে অশ্রুর নিবরে । কিন্তু, এই বোঝা পয়ারজাতীয় পালোয়ানের স্বন্ধে চাপালে দুর্ঘটনার আশঙ্কা থাকবে না । প্রথমে বিনা-বোঝার চালটা দেখানো যাক— শ্রাবণের কালো ছায়া নেমে আসে তমণলের বলে যেন দিক-ললনার গলিত কণজল-বরিষনে । এটিকে গুরুভার করে দিই— বর্ষার তমিশ্রচ্ছায়া ব্যাপ্ত হল অরণ্যের তলে যেন অশ্রুসিক্ত চক্ষু দিগ বধূর গলিত কাজলে । এতটা ভারবৃদ্ধি যে সম্ভব হয় তার কারণ পয়ার স্থিতিস্থাপক । ধ্বনির দুই মাত্রা এবং তিন মাত্র বাংলা ছন্দের আদিম এবং রূঢ়িক উপাদান । তার পরে এই দুই এবং তিনের ষোগে যৌগিকমাত্রার ছন্দের উৎপত্তি। তিন+ছই, তিন+চার, তিন+ছুষ্ট + চার প্রভৃতি নানাপ্রকার যোগ চলেছে আধুনিক বাংলা ছন্দে । তিন+ছুই মাত্রামুলক ছন্দের দৃষ্টাস্ত— 媳 আঁধার রাতি জেলেছে ৰাতি অযুতকোটি তারা, মাপন কারা-ভবনে পাছে আপনি হয় হারা । ミ〉闘R? (`