পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (একবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৬০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


38 রবীন্দ্র-রচনাবলী সে বলে, “তা হলে মহা ঠকিলাম, অামি তো দিয়েছি ষোল-অর্ণনা দাম ।’ হাতে হাতে সেটা করিল প্রমাণ ৰাড়া দিয়ে তার ব্যাগখণনা । ԳՆ, পাড়াতে এসেছে এক নাড়ীটেপা ডাক্তার, দূর থেকে দেখা যায় অতি উচু নাক তার । নাম লেখে ওষুধের, এ দেশের পশুদের সাধ্য কী পড়ে তাহা এই বড়ো জাক তার । যেথা যায় বাড়ি বাড়ি দেখে ষে ছেড়েছে নাড়ী, পাওনাটা আদায়ের 영업 ইয়ারিং ছিল তার ছু কালেই । গেল যবে তাকরার দোকানেই মনে প’ল, গল্পলা তো চাওয়া যায়, আরেকটা কণন কোথা পাওয়া যায়— সে কথাটা লোটবুকে টোকা নেই। মালি বলে, “তোর মতো বোকা নেই