পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (একাদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১১৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গীতাঞ্জলি তোমার অস্ত নাই গো অস্ত নাই, বারে বারে নূতন লীলা তাই । আবার তুমি জানি নে কোন বেশে পথের মাঝে দাড়াবে, নাথ, হেসে, আমার এ হাত ধরবে কাছে এসে, লাগবে প্রাণে নূতন ভাবের ঘোর। তোমায় খোজ শেষ হবে না মোর । ১০ প্রাবণ ১৩১৭ > ○8 যেন শেষ গানে মোর সব রাগিণী পূরে— আমার সব আনন্দ মেলে তাহার স্বরে । যে আনন্দে মাটির ধরা হাসে অধীর হয়ে তরুলতায় ঘাসে, যে আনন্দে দুই পাগলের মতো জীবন-মরণ বেড়ায় ভুবন ঘুরে— সেই আনন্দ মেলে তাহার স্বরে । যে আনন্দ আসে ঝড়ের বেশে, ঘুমন্ত প্রাণ জাগায় অট্ট হেসে। যে আনন্দ দাড়ায় আঁখিজলে দুঃখ-ব্যথার রক্তশতদলে, যা আছে সব ধুলায় ফেলে দিয়ে যে আনন্দে বচন নাহি ফুরে সেই আনন্দ মেলে তাহার স্বরে । ১১ শ্রাবণ ১৩১৭ So (t