পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (একাদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৩৫৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অচলায়তন Hෂණූ এই তো সকল ক্ষণের মানুষ দাদাঠাকুর। এই তো ঘরে ঘরে, এই তো বাহির করে, এই আমাদের কোণের মানুষ পঞ্চক। ও ভাই, তোদের দাদাঠাকুরকে নিয়ে তোরা তো দিনরাত মাতামাতি করছিস, একবার আমাকে ছেড়ে দে, আমি একটু নিরালায় বসে কথা কই । ভয় নেই, ওঁকে আমাদের অচলায়তনে নিয়ে গিয়ে কপাট দিয়ে রাখব না। প্রথম শোণপাংশু । নিয়ে যাও না । সে তো ভালোই হয় । তা হলে কপাটের বাপের সাধ্য নেই বন্ধ থাকে। উনি গেলে তোমাদের অচলায়তনের পাথরগুলো-স্বদ্ধ নাচতে আরম্ভ করবে, পুথিগুলোর মধ্যে বঁাশি বাজবে। দ্বিতীয় শোণপাংশু। আচ্ছা, আয় ভাই, আমাদের কাজগুলো সেরে আসি । দাদাঠাকুরকে নিয়ে পঞ্চকদাদা একটু বস্থক । [ প্রস্থান পঞ্চক। ঐ শোণপাংশুগুলো গেছে, এইবার তোমার পায়ের ধুলো নিই দাদাঠাকুর । ওরা দেখলে হেসে অস্থির হত তাই ওদের সামনে কিছু করি নে। দাদাঠাকুর । দরকার কী ভাই পায়ের ধুলোয় । পঞ্চক। নিতে ইচ্ছে করে। বুকের ভিতরট যখন ভরে ওঠে, তখন বুঝি তার ভারে মাথা নিচু হয়ে পড়ে – ভক্তি না করে যে বাচি নে। * ... দাদাঠাকুর । ভাই, আমিও থাকতে পারি নে। স্নেহ যখন আমার হৃদয়ে ধরে না, তখন সেই স্নেহই আমার ভক্তি । পঞ্চক । অচলায়তনে প্রণাম করে করে ঘাড়ে ব্যথা হয়ে গেছে। তাতে নিজেকেই কেবল ছোটো করেছি, বড়োকে পাই নি। দাদাঠাকুর । এই আমার সবার বাড়া বড়োর মধ্যে এসে যখন বসি তখন ষ৷ করি তাই প্রণাম হয়ে ওঠে। এই-ষে খোলা আকাশের নীচে দাড়িয়ে তোমার মুখের দিকে তাকিয়ে আমার মন তোমাকে আশীর্বাদ করছে— এও আমার প্রণাম । পঞ্চক। দাদাঠাকুর, তোমার দুই চোখ দিয়ে এই-ষে তুমি কেবল সেই বড়োকে দেখছ, তোমাকে যখন দেখি তখন তোমার সেই দেখাটিকেও আমি যেন পাই। তখন द्भ-> >||२२