পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (একাদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৩৮০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


19ుe রবীন্দ্র-রচনাবলী পরানখানি দিব পাতি চরণ রেখে তাহার পরে। আচার্য। পঞ্চক, আমাদেরও এমনি করে ডাকতে হবে— বজ্ররবে যিনি দরজায় ঘা দিয়েছেন তাকে ঘরে ডেকে নাও— আর দেরি কোরো না । 离 ভুলে গিয়ে জীবন মরণ লব তোমায় করে বরণ, করিব জয় শরমত্ৰাসে দাড়াব আজ তোমার পাশে বঁাধন বাধা যাবে জলে, সুখদুঃখ দেব দলে, ঝড়ের রাতে তোমার সাথে G বাহির হব অভয় ভরে । সকলে । উতল ধারা বাদল ঝরে— দুয়ার খুলে এলে ঘরে । চোখে আমার ঝলক লাগে, সকল মনে পুলক জাগে, চাহিতে চাই মুখের বাগে নয়ন মেলে কঁাপি ডরে । পঞ্চক। ঐ আবার বজ্ৰ । আচার্ষ। দ্বিগুণ বেগে বৃষ্টি এল । উপাচার্য । আজ সমস্ত রাত এমনি করেই কাটবে। (t অচলায়তন মহাপঞ্চক, তৃণাঞ্জন, সঞ্জীব, বিশ্বম্ভর, জয়োত্তম মহাপঞ্চক। তোমরা অত ব্যস্ত হয়ে পড়ছ কেন ! কোনো ভয় নেই । তৃণাঞ্জন । তুমি তো বলছ ভয় নেই, এই যে খবর এল শত্রুসৈন্ত অচলায়তনের প্রাচীর ফুটো করে দিয়েছে। ।