পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (একাদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৫১২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8వి: রবীন্দ্র-রচনাবলী তিব্বতিদিগকে কিরূপ ভয় করে, তাহাদিগকে তিব্বতিদের হস্ত হইতে রক্ষা কaিn, বৃটিশরাজ কিরূপ অক্ষম, তাহা ল্যাগুর জানিতেন। ইহাও তিনি জানিতেন, তাহার মধ্যে যে উৎসাহ উত্তেজনা ও প্রলোভন কাজ করিতেছে, শোকাদের মধ্যে তাহার লেশমাত্র নাই । তৎসত্ত্বেও ল্যাগুর তাহার গ্রন্থের ১৬৫ পৃষ্ঠায় যে ভাষায় যে ভাবে র্তাহার বাহকদের ভয়দুঃখের বর্ণনা করিয়াছেন তাহা তর্জমা করিয়া দিলাম— তাহার প্রত্যেকে হাতে মুখ ঢাকিয়া ব্যাকুল হইয়া কঁাদিতেছিল । কাচির দুই গাল বাহিয়া চোখের জল ঝরিয়া পড়িতেছিল, দোল ফোপাইয়। কাদিতেছিল, এবং ডাকু ও অন্ত যে-একটি তিব্বতি আমার কাজ লইয়াছিল – যাহার। ভয়ে ছদ্মবেশ গ্রহণ করিয়াছিল— তাহারা তাহাদের বোঝার পশ্চাতে লুকাইয়৷ বসিয়া ছিল । আমাদের অবস্থা যদিও সংকটাপন্ন ছিল তবু আমাদের লোকজনদের এই আতুর দশা দেখিয়া আমি না হাসিয়া থাকিতে পারিলাম না । ইহার পরে এই দুর্ভাগারা পলায়নের চেষ্টা করিলে ল্যাগুর তাহাদিগকে এই বলিয়া শাস্ত করেন যে, যে-কেহ পলায়নের বা বিদ্রোহের চেষ্টা করিবে তাহাকে গুলি করিয়া মারিব । কিরূপ তুচ্ছ কারণেই ল্যাগুর সাহেবের গুলি করিবার উত্তেজনা জন্মে অন্যত্র তাহার পরিচয় পাওয়া গেছে । তিব্বতি কর্তৃপক্ষের নিকট হইতে ল্যাগুর যখন প্রথম নিষেধ প্রাপ্ত হইলেন তখন তিনি ভান করিলেন, যেন ফিরিয়া যাইতেছেন। একটা উপত্যকায় নামিয়া আসিয়া দুরবীন কষিয়া দেখিলেন, পাহাড়ের শৃঙ্গের উপর হইতে প্রায় ত্রিশটা মাথা পাথরের আড়ালে উকি মারিতেছে। সাহেব লিখিতেছেন— আমার বড়ো বিরক্তি বোধ হইল। যদি ইচ্ছা হয় তো ইহার প্রকাষ্ঠভাবেই আমাদের অনুসরণ করে না কেন । দূর হইতে পাহার। দিবার দরকার কী । অতএব আমি আমার আটশো-গজি রাইফেল লইয়৷ মাটিতে চ্যাপট হইয়া শুইলাম এবং যে মাথাটাকে অন্তদের চেয়ে স্পষ্ট দেখা যাইতেছিল তাহার প্রতি লক্ষ্য স্থির করিলাম । এই 'অতএব’এর বাহার আছে। লুকাচুরিকে ল্যাগুর সাহেব কী ঘূণাই করেন। তিনি এবং তাহার সঙ্গের আর-একটা মিশনারি সাহেব নিজেদের হিন্দু তীর্থযাত্রী বলিয়া পরিচয় দিয়াছেন, প্রকাশ্যে ভারতবর্ষে ফিরিবার ভান করিয়া গোপনে লাসায় যাইবার উযোগ করিতেছেন, কিন্তু পরের লুকাচুরি ইহার এতই অসহ যে, ভূমিতে চ্যাপট হইয়৷ আত্মগোপনপূর্বক তৎক্ষণাৎ আটশো-গজি রাইফেল বাগাইয়া কহিলেন : I only wish to teach these cowards a lesson “atfit to otosfits first firs ইচ্ছা করি । দূর হইতে লুকাইয়া রাইফেল-চালনায় সাহেব যে পৌরুষের পরিচয় দিতেছিলেন তাহার বিচার করিবার কেহ ছিল না। অামাদের ওরিয়েন্টালদের