পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (চতুর্দশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৫৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রবীন্দ্র-রচনাবলী তাহারি ছন্দের ভঙ্গে সর্ব অঙ্গে উঠিছে সঞ্চরি জীবনহিল্লোল ॥ এ প্রাণ তোমারি এক ছিন্ন তান, স্বরের তরণী ; আয়ুস্রোত-মুখে হাসিয়া ভাসায়ে দিলে লীলাচ্ছলে, কৌতুকে ধরণী বেঁধে নিল বুকে । আশ্বিনের রৌদ্রে সেই বন্দী প্রাণ হয় বিস্ফুরিত উৎকণ্ঠার বেগে, যেন শেফালির শিশিরচ্ছরিত উংস্থক আলোক । তরঙ্গহিল্লোলে নাচে রশ্মি তব, বিস্ময়ে পূরিত করে মুগ্ধ চোখ । তেজের ভাণ্ডার হতে কী আমাতে দিয়েছ যে ভরে কেই বা সে জানে ? কী জাল হতেছে বোন স্বপ্নে স্বপ্নে মান বর্ণডোরে CTI SQ-2riT여 ? তোমার দূতীরা আঁকে ভুবন-অঙ্গনে আলিম্পনা । মুহূর্তে সে ইন্দ্রজাল অপরূপ রূপের কল্পনা মুছে যায় সরে । তেমনি সহজ হ’ক হাসিকান্না ভাবনাবেদনা, না বাধুক মোরে । তারা সবে মিলে থাক অরণ্যের স্পন্দিত পল্লবে, শ্রাবণ-বর্ষণে ; যোগ দিক নিঝরের মঞ্জীর-গুঞ্জন-কলরবে উপলঘর্ষণে । ঝঞ্চার মদিরামত্ত বৈশাখের তাণ্ডবলীলায় বৈরাগী বসন্ত যবে আপনার বৈভব বিলায়; সঙ্গে যেন থাকে ।