পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (চতুর্দশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৭১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রবীন্দ্র-রচনাবলী বনের পারে আবার তারে কোথায় পেলে খুজি শুকনো পাতার তলে ? যে-স্থর তুমি শিখিয়েছিলে বসে আমার পাশে সকালবেলায় বটের তলায় শিশির-ভেজা ঘাসে, সে আজ ওঠে হঠাৎ বেজে বুকের দীর্ঘশ্বাসে, উছল চোখের জলে,— কাপত যে-স্থর ক্ষণে ক্ষণে তুরস্ত বাতাসে শুকনো পাতার তলে ৷ মোর প্রভাতের খেলার সাথি অানত ভরে সাজি সোনার চাপাফুলে । অন্ধকারে গন্ধ তারি ঐ যে আসে আজি একি পথের ভুলে ? বকুলবীথির তলে তলে আজ কি নতুন বেশে সেই খেলাতেই ডাকতে এল আবার ফিরে এসে ? সেই সাজি তার দখিন হাতে, তেমনি আকুল কেশে চাপার গুচ্ছ তুলে । সেই অজানা হতে অণসে এই অজানার দেশে এ কি পথের ভুলে ॥ আমার কাছে কী চাও তুমি , ওগো খেলার গুরু, কেমন খেলার ধারা । চাও কি তুমি যেমন করে হল দিনের শুরু, তেমনি হবে সারা । সেদিন ভোরে দেখেছিলাম প্রথম জেগে উঠে নিরুদেশের পাগল হাওয়ায় আগল গেছে টুটে, কাজ-ভোলা সব খ্যাপার দলে তেমনি আবার জুটে করবে দিশেহারা । স্বপন-মৃগ ছুটিয়ে দিয়ে পিছনে তার ছুটে তেমনি হব সারা ॥