পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (চতুর্বিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১০৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কালিম্পঙ ১৮ জুন, ১৯৩৮ | মেশায় যখন স্বপ্নে-বলা মৃদু ভাষাৰ ধারা— প্রখম রাতের তারা অবাক চেয়ে থাকে, অন্ধকারের পারে যেন কানাকানির মান্থব পেল কাকে, হৃদয় তখন বিশ্বলোকের অনন্ত নিভৃতে দোসর নিয়ে চায় যে প্রবেশিতে— কে দেয় দুয়ার রুধে, , একলা ঘরের স্তন্ধ কোণে থাকি নয়ন মুদে । কী সংশয়ে কেন তুমি এলে কাঙাল বেশে । সময় হলে রাজার মতো এসে জানিয়ে কেন দাও নি আমায় প্রবল তোমার দাবি । ভেঙে যদি ফেলতে ঘরের চাবি ধুলার পরে মাথা আমার দিতেমলুটায়ে, গৰ্ব আমার অর্ঘ্য হত পায়ে । 匣 দুঃখের সংঘাতে আজি সুধার পাত্র উঠেছে এই ভরে, তোমার পানে উদ্দেশেতে উর্ধের্ব আছি ধ’রে চরম আত্মদান । র্তাধার করে আছে আমার সমস্ত জগৎ, পাই নে খুজে সার্থকতার পথ । রূপকথায় কোথাও আমার হারিয়ে যাবার নেই মানা , মনে মনে । মেলে দিলেম গানের স্বরের এই ডানা মনে মনে ।