পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (চতুর্বিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১৩৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ՖՀ8 রবীন্দ্র-রচনাবলী সেই মেয়ে নহে বিংশ-শতকিয়া ছন্দোহার কবিদের ব্যঙ্গহাসি-বিহসিত প্রিয়া । সে নয় ইকনমিকৃষ্ণু-পরীক্ষাবাহিনী আতপ্ত বসন্তে আজি নিশ্বসিত যাহার কাহিনী । অনস্বয়া নাম তার, প্রাকৃতভাষায় কারে সে বিশ্বত যুগে কাদায় হাসায়, অশ্রত হাসির ধ্বনি মিলায় সে কলকোলাহলে শিপ্রাতটতলে । পিনদ্ধ বন্ধলবন্ধে যৌবনের বন্দী দূত লোহে জাগে অঙ্গে উদ্ধত বিদ্রোহে । অযতনে এলায়িত রুক্ষ কেশপাশ বনপথে মেলে চলে মৃদুমন্দ গন্ধের আভাস । প্রিয়কে সে বলে ‘পিয়’, বাণী লোভনীয়— । এনে দেয় রোমাঞ্চ-হরষ কোমল সে ধ্বনির পরশ । সোহাগের নাম দেয় মাধবীরে আলিঙ্গনে ঘিরে, এ মাধুরী যে দেখে গোপনে ঈর্ষার বেদনা পায় মনে । যখন নৃপতি ছিল উচ্ছম্বল উন্মত্তের মতো দয়াহীন ছলনায় রত আমি কবি অনাবিল সরল মাধুরী করিতেছিলাম চুরি এলা-বনচ্ছায়ে এক কোণে, মধুকর যেমন গোপনে ফুলমধু লয় হরি ।