পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (চতুর্বিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১৪৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ويقالا যেন মুখরিয়া তোলে শিশুর কল্লোল। ইংরেজ কবির লেখা একমনে পড়িছে তরুণী, গুন্‌গুম্ রব তার পিছনে দাড়ায়ে আমি শুনি ; মৃদু বেদনায় ভাবি, যে-কবির বাণী পড়িছে বিরাম নাহি মানি, আমি কেন সে কবি না হই । এতদিন নানাভাবে কাব্যে যাহা কই আজি এ গিরির মতো কেন সে নির্বাক । অদূরে মাদার-শাখে ঘুঘু দেয় ডাক । আমার মর্মের ছন্দ পাখির ভাষায় অফুরান নৈরাশায় উছলিতে থাকে একতানে । আন-মননীর কানে কানে । আতপ্ত হতেছে দিন, শিশির শুকায়ে গেছে ঘাসে, অজানা ফুলের গুচ্ছ উচ্চ শাখে দুলিছে বাতাসে । ঢালুতটে তরুচ্ছায়াতলে ঝিলিমিলি শিহরন ঝরনার জলে । চূৰ্ণ কেশে নিত্য চঞ্চলতা, দুর্বাধ্য পড়িছে চোখে, অধ্যয়নরতা সরায়ে দিতেছে বারংবার বাহুক্ষেপে। ধৈর্য মোর রহিল না আর , চকিতে সম্মুখে আসি শুধালাম, “তুমি কি শোন নি মোর নাম।” মুখে তার সে কি অসন্তোষ, সে কি লজ্জা, সে কি রোষ, সে কি সমুদ্ধত অহংকার। . . উত্তর শোনার অপেক্ষ না করি আমি দ্রুত গেল্প চলি । ঘুঘুর কাকলি