পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (চতুর্বিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৩৬১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


७d९ রবীন্দ্র-রচনাবলী ত্রিকোটিকুলযুদ্ধরেং । এমনি করে অবুদ্ধির রাজত্বে আকস্মিক খুটি সমস্তই সনাতন হয়ে ওঠে, লোকচলাচলের রাস্তায় চলার চেয়ে বাধা পড়ে থাকাটা সহজ হয়ে ওঠে। ধারা নিষ্ঠাবান তারা বলেন, আমরা বিধাতার বিশেষ স্বষ্টি, অন্ত কোনো জাতের সঙ্গে আমাদের মেলে না, অতএব রাস্তা বন্ধ হলেও আমাদের চলে কিন্তু খুটি না থাকলে আমাদের ধর্ম থাকে না। যারা খুটশ্বরীকে মানেও না, এমন-কি যারা বিদেশী ভাবুক, তারাও বলে, আহ, একেই তো বলে আধ্যাত্মিকতা— নিজের জীবনযাত্রার সমস্ত স্থযোগ-সুবিধাই এরা মাটি করতে রাজি, কিন্তু মাটি থেকে একটা খুটি এক ইঞ্চি পরিমাণও ওপৃড়াতে চায় না। সেই সঙ্গে এও বলে, আমাদের বিশেষত্ব অন্ত রকমের, অতএব আমরা এদের অনুকরণ করতে চাই নে, কিন্তু এরা যেন হাজার খুঁটিতে ধর্মের বেড়াজালে এইরকম বাধা হয়ে অত্যন্ত শাস্ত সমাহিত হয়ে পড়ে থাকে— কারণ, এটি দূর থেকে দেখতে বড়ো স্বন্দর। সৌন্দর্য নিয়ে তর্ক করতে চাই নে। সেটা রুচির কথা । যেমন ধর্মের নিজের অধিকারে ধর্ম বড়ো, তেমনি সুন্দরের নিজের অধিকারে সুন্দর বড়ো । আমার মতো অর্বাচীনের বুদ্ধির অধিকারের দিক থেকে প্রশ্ন করবে, এমনতরো খুটি-কণ্টকিত পথ দিয়ে কখনো স্বাতন্ত্র্যসিদ্ধির রথ কি এগোতে পারে। বুদ্ধির অভিমানে বুক বেঁধে নব্যতন্ত্রী প্রশ্ন করে বটে, কিন্তু রাত্রে আর ঘুম হয় না। যেহেতু গৃহিণীরা স্বস্ত্যয়নের আয়োজন করে বলেন, "ছেলে-পুলে নিয়ে ঘর, কী জানি কোন খুটি কোন দিন বা দৃষ্টি দেয়। তোমরা চুপ করে থাকে-না। কলিকালে খুটি নাড়া দেবার মতো ডানপিটে ছেলের তো অভাব নেই। শুনে আমাদের মতো নিছক আধুনিকদেরও বুক ধুক্‌ধুক্‌ করতে থাকে, কেননা রক্তের ভিতর থেকে সংস্কারটাকে তো ছেকে ফেলতে পারি নে। কাজেই পরের দিন ভোরবেলাতেই এক সেরের বেশি ছাগদুগ্ধ তিন তোলার বেশি রজত খরচ করে হাফ ছেড়ে বাচি । এই তো গেল আমাদের সবচেয়ে প্রধান সমস্তা। ষে বুদ্ধির রাস্তায় কর্মের রাস্তায় মানুষ পরস্পরে মিলে সমৃদ্ধির পথে চলতে পারে সেইখানে খুটি গেড়ে থাকার সমস্যা ; যাদের মধ্যে সর্বদা আনাগোনার পথ সকল রকমে খোলসা রাখতে হবে তাদের মধ্যে অসংখ্য খুটির বেড়া তুলে পরস্পরের ভেদকে বহুধা ও স্থায়ী করে তোলার সমস্ত ; বুদ্ধির যোগে যেখানে সকলের সঙ্গে যুক্ত হতে হবে, অবুদ্ধির অচল বাধায় সেখানে সকলের সঙ্গে চিরবিচ্ছিন্ন হবার সমস্তা ; খুটিরূপিণী ভেদবুদ্ধির কাছে ভক্তিভরে বিচারবিবেককে বলিদান করবার সমতা ! ভাবুক লোকে এই সমস্তার সামনে দাড়িয়ে ছলছল নেজে বলেন, আহ, এখানে ভক্তিটাই হল বড়ো কথা এবং সুন্দর কথা, খুটিটা