পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (তৃতীয় খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/২৪৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


૨૨8 i রবীন্দ্র-রচনাবলী কমলমুখীর প্রবেশ দিদিভাই, তুমি যে বলতে কাননকুস্বমিকা তোমার আদবে ভালো লাগে না, তা হলে বইখানা আর-একবার তো ফিরে পড়তে হবে – এবারে বোধ করি মত একটুআধটু বদলাতেও পারে। কমলমুখী । আমি ভাই দরকার বুঝে মত বদলাতে পারিনে । ইন্দুমতী । তা ভাই, শুনেছি স্বামীর জন্যে সবই করতে হয়— জীবনের অনেকখানি নতুন করে বদলে ফেলতে হয় । বিধাতা তো আর আমাকে ঠিক তার শ্ৰীচরণকমলের মাপ নিয়ে বানাননি। স্বামীরা আবার কোথাও একটু জাট সইতে পারেন না। কমলমুখী। তা আমরা তাদের মনের মতো মত বদলাতে না পারলে তারা তো আমাদের বদলে ফেলতে পারেন— তাতে তো কেউ বাধা দেবার নেই। আমি যা আছি তা আছি, এতদিন পরে যে কারো মনোরঞ্জনের জন্যে আবার ধার-করা মালমসলা নিয়ে আপনাকে ফরমাশে গড়তে হবে সে তো ভাই আর পারব না । এতে যদি কারো পছন্দ না হয় তো সে আমার অদৃষ্টের দোষ । ইন্দুমতী । কিন্তু তোর তো সে-কথা বলবার জো নেই, তাকে তো তোর পছন্দ করতেই হবে । কমলমুখী । আমি তো আর স্বয়ংবর হতে যাচ্ছিনে বোন, তা আমার আবার পছন্দ । দুটো-একটা কাপড়চোপড় ছাড়া জীবনের কটা জিনিসই বা নিজের পছন্দ অনুসারে পাওয়া গেছে। বিধাতা কোনো বিষয়ে কারো তো মত জিজ্ঞাসা করেন না । আপনাকেই আপনি পছন্দ করে নিতে পারিনি। যদি পারতুম তা হলে বোধ হয় এর চেয়ে ঢের ভালো মানুষটিকে পেতুম— কিন্তু তবু তো আপনাকে কম ভালোবাসিনে— তাকেও বোধ হয় তেমনি ভালোবাসব ! ইন্দুমতী । তুই ভাই কথায় কথায় বড়ো বেশি গম্ভীর হয়ে পড়িস, বিনোদের কাছে যদি আমনি করে থাকিস তা হলে সে তোর সঙ্গে প্রেমালাপ করতে সাহস করবে না— কমলমুখী । সে জন্তে না হয় তুই নিযুক্ত থাকিস । ইন্দুমতী । তা হলে যে তোর গাম্ভীর্ঘ আরো সাত গুণ রেড়ে যাবে। দেখ, ভাই, তুই তো একটা পোষ কবি হাতে পেলি এবার তাকে দিয়ে তোর নিজের নামে কবিতা লিখিয়ে নিস— যতক্ষণ পছন্দ না হয় ছাড়িসনে— চাই কি, দুটো-একটা