পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (তৃতীয় খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/২৭৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ఫి(t\ রবীন্দ্র-রচনাবলী নিমাই। আপনি তো সব শুনেছেন— আমি তো বিয়ে করতে অসন্মত নই— শিবচরণ । আরে, তাতেই তো আমার বুঝতে আরো গোল বেধেছে । যদি বিয়ে করতেই আপত্তি না থাকে তবে না হয় একটাকে না করে আর একটাকেই করলি । নিবারণকে কথা দিয়েছি— আমি তার কাছে মুখ দেখাই কী করে । নিমাই। নিবারণবাবুকে ভালো করে বুঝিয়ে বললেই সব— শিবচরণ। আরে, আমি নিজে বুঝতে পারিনে, নিবারণকে বোঝাব কী । আমি যদি তোর মাকে বিয়ে না করে তোর মাসিকে বিয়ে করবার প্রস্তাব মুখে আনতুম, তা হলে তোর ঠাকুরদাদা কি আমার দুখান হাড় একত্র রাখত। পড়েছিস ভালোমানুষের হাতে— নিমাই। শুনেছি আমার ঠাকুর্দামশায়ের মেজাজ ভালো ছিল না— শিবচরণ। কী বলিস বেটা ! মেজাজ ভালো ছিল না ! তোর বাবার চেয়ে তিন-শ গুণে ভালো ছিল ! কিছু বলিনে বলে বটে — সে যা হোক, এখন যা হয় একটা কথা ঠিক করেই বল । নিমাই । আমি তো বরাবর এক কথাই বলে আসছি । শিবচরণ । ( সরোধে ) তুই তো বলছিস এক কথা। আমিই কি এক কথার বেশি বলছি । মাঝের থেকে কথা যে আপনিই দুটো হয়ে যাচ্ছে। আমি এখন নিবারণকে বলি কী। তা সে যা হোক, তুই তা হলে নিবারণের মেয়ে ইন্দুমতীকে কিছুতেই বিয়ে করবিনে ? যা বলবি এক কথা বল। নিমাই । কিছুতেই না বাবা । শিবচরণ। একমাত্র বাগবাজারের কাদম্বিনীকেই বিয়ে করবি ? ঠিক করে বলিস । নিমাই । সেই রকমই স্থির করেছি— শিবচরণ। বড়ো উত্তম কাজ করেছ— এখন আমি নিবারণকে কী বলব ? নিমাই । বলবেন, আপনার অবাধ্য ছেলে তার কষ্ঠ ইন্দুমতীর যোগ্য নয়। শিবচরণ। কোথাকার নির্লজ্জ ! আমাকে আর তোর শেখাতে হবে না। কী বলতে হবে তা আমি বিলক্ষণ জানি । তবে ওর আর কিছুতেই নড়চড় হবে না ? নিমাই। না বাবা, সেজন্তে আপনি ভাববেন না । শিবচরণ। আরে ম’ল ! আমি সেই জন্তেই ভেবে মরছি আর-কি। আমি ভাবছি, নিবারণকে বলি কী !