পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (তৃতীয় খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/২৮৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গোড়ায় গলদ o ২৬৩ বিনোদবিহারী । ই ভাই, নিতান্ত লক্ষ্মীছাড়ার মতো থাকতে আর ইচ্ছে করছে না। স্ত্রীকে ঘরে এনে একটু ভদ্রলোকের মতে হতে হচ্ছে। বিবাহ করে আইবুড়ো থাকলে লোকে বলবে কী । চন্দ্রকান্ত । সে আর আমাকে বোঝাতে হবে না— কিন্তু এতদিন তোর এ আক্কেল ছিল কোথায় । যতকাল আমার সংসর্গে ছিলি এমন সব সদালাপ সৎপ্রসঙ্গ তো শুনতে পাইনি, দু-দিন আমার দেখা পাসনি আর তোর বুদ্ধি এতদূর পরিষ্কার হয়ে এল ? যা হোক তা হলে আর বিলম্বে কাজ নেই— এখনি চল— শুভবুদ্ধি মানুষের মাথায় দৈবাং উদয় হয় তখন তাকে অবহেলা করা কিছু নয় । তৃতীয় দৃশ্য কমলমুখীর গৃহ ইন্দুমতী ও কমলমুখী কমলমুখী । তোর জালায় তো আর বাচিনে ইন্দু। তুই আবার এ কী জট পাকিয়ে বসে আছিস । ললিতবাবুর কাছে তোকে কাদম্বিনী বলে উল্লেখ করতে হবে না কি ? ইন্দুমতী । ত কী করব দিদি । কাদম্বিনী না বললে যদি সে না চিনতে পারে তা হলে ইন্দু বলে পরিচয় দিয়ে লাভটা কী । কমলমুখী । ইতিমধ্যে তুই এত কাও কখন করে তুললি তা তো জানিনে । একটা ষে আস্ত নাটক বানিয়ে বসেছিস । ইন্দুমতী । তোমার বিনোদবাবুকে বোলো, তিনি লিখে ফেলবেন এখন, তার পর মেট্ৰপলিটান থিয়েটারে অভিনয় দেখতে যাব । কমলমুখী । তোমার ললিতবাবু সাজতে পারে এমন ছোকরা কি তারা কোথাও খুজে পাবে। তুই হয়তো মাঝখান থেকে “ও হয়নি, ও হয়নি” বলে চেচিয়ে উঠবি । -ইন্দুমতী । ওই ভাই, তোমার বিনোদবাবু আসছেন, আমি পালাই । [ প্রস্থান বিনোদবিহারীর প্রবেশ বিনোদবিহারী। মহারানী, আমার বন্ধুরা এলে কোথায় তাদের বসাব । কমলমুখী। এই ঘরেই বসাবেন। \5–\00