পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (তৃতীয় খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৩৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রবীন্দ্র-রচনাবলী দেয় নির্বাসিত করি, দশ দিক অপহরি, সমুদয় বিশ্বের বাহিরে । বসে বসে সঙ্গীহীন ভালো লাগে কিছুদিন পড়িবারে মেঘদূত-কথা ;– বাহিরে দিবস-রাতি বায়ু করে মাতামাতি বহিয়া বিফল ব্যাকুলতা — বহুপূর্ব আষাঢ়ের মেঘাচ্ছন্ন ভারতের নগ-নদী-নগরী বাহিয়া কত শ্রুতিমধু নাম কত দেশ কত গ্রাম দেখে যাই চাহিয়া চাহিয়া । ভালো করে দোহে চিনি, বিরহী ও বিরহিণী জগতের দু-পারে দু-জন, প্রাণে প্রাণে পড়ে টান, মাঝে মহা ব্যবধান, মনে মনে কল্পনা স্বজন । যক্ষবধু গৃহকোণে ফুল নিয়ে দিন গনে দেখে শুনে ফিরে আসি চলি । বর্ষা আসে ঘন রোলে, যত্বে টেনে লই কোলে গোবিন্দ দাসের পদাবলী । স্বর করে বার বার পড়ি বর্ষা-অভিসার— অন্ধকার যমুনার তীর, নিশীথে নবীন রাধ নাহি মানে কোনো বাধা, খুজিতেছে নিকুঞ্জ-কুটির । অতুক্ষণ দর দর বারি ঝরে ঝর ঝর, তাহে অতি দুরতর বন,— ঘরে ঘরে রুদ্ধ দ্বার, সঙ্গে কেহ নাহি আর শুধু এক কিশোর মদন । আষাঢ় হতেছে শেষ, মিশায়ে মল্লার দেশ রচি “ভরা বাদরের” স্থর । খুলিয়া প্রথম পাতা, গীতগোবিন্দের গাথা গাহি “মেঘে আম্বর মেদুর ।”