পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (তৃতীয় খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৫০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8 е রবীন্দ্র-রচনাবলী চেয়ে দেখিত না, কুড়ি দূরে ফেলে দিত ছুড়ি' কখন ফেলেছে ছুড়ে পরশ-পাথর। তখন যেতেছে অস্তে মলিন তপন । আকাশ সোনার বর্ণ, সমুদ্র গলিত স্বর্ণ, পশ্চিম-দিম্বধূ দেখে সোনার স্বপন । সন্ন্যাসী আবার ধীরে পূর্বপথে যায় ফিরে খুজিতে নুতন ক’রে হারানো রতন । সে-শকতি নাহি আর কুয়ে পড়ে দেহভার অস্তর লুটায় ছিন্ন তরুর মতন । পুরাতন দীর্ঘপথ পড়ে আছে মৃতবৎ হেথা হতে কত দূর নাহি তার শেষ । দিক হতে দিগন্তরে মরুবালি ধুধু করে, আসন্ন রজনী-ছায়ে মান সর্বদেশ। অর্ধেক জীবন খুজি কোন ক্ষণে চক্ষু বুজি স্পর্শ লভেছিল যার এক পলভর, বাকি অর্ধ ভগ্ন প্রাণ আবার করিছে দান ফিরিয়া খুজিতে সেই পরশ-পাথর । শাস্তিনিকেতন ১৯ জ্যৈষ্ঠ, ১২৯৯ বৈষ্ণব-কবিতা শুধু বৈকুণ্ঠের তরে বৈষ্ণবের গান ? পুবরাগ অনুরাগ, মান-অভিমান, অভিসার, প্রেমলীলা, বিরহ-মিলন, বৃন্দাবন-গাথা,— এই প্রণয়-স্বপন শ্রাবণের শর্বরীতে কালিন্দীর কুলে, চারি চক্ষে চেয়ে দেখা কদম্বের মূলে