পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (তৃতীয় খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৭৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


و جمیس (-\ সোনার তরী মানসসুন্দরী আজ কোনো কাজ নয় ;– সব ফেলে দিয়ে ছন্দোবন্ধ-গ্রন্থগীত– এস তুমি প্রিয়ে, আজন্ম-সাধন-ধন সুন্দরী আমার কবিতা, কল্পনা-লতা। শুধু একবার কাছে বসো। আজ শুধু কুজন গুঞ্জন তোমাতে আমাতে ; শুধু নীরবে ভুঞ্জন এই সন্ধ্যা-কিরণের সুবর্ণ মদিরা,— যতক্ষণ অস্তরের শিরা-উপশিরা লাবণ্য-প্রবাহভরে ভরি নাহি উঠে, যতক্ষণে মহানন্দে নাহি যায় টুটে চেতনাবেদনাবন্ধ, ভুলে যাই সব কী আশা মেটেনি প্রাণে, কী সংগীতরব গিয়েছে নীরব হয়ে, কী আনন্দসুধা অধরের প্রান্তে এসে অস্তরের ক্ষুধা না মিটায়ে গিয়াছে শুকায়ে । এই শাস্তি, এই মধুরতা, দিক সৌম্য স্নান কান্তি জীবনের দুঃখদৈন্য-অতৃপ্তির পর— করুণকোমল আভা গভীর স্বন্দর । বীণা ফেলে দিয়ে এস, মানস-সুন্দরী, দুটি রিক্ত হস্ত শুধু আলিঙ্গনে ভরি কণ্ঠে জড়াইয়া দাও,— মৃণাল-পরশে রোমাঞ্চ অঙ্কুরি উঠে মর্মাস্ত হরযে,— কম্পিত চঞ্চল বক্ষ, চক্ষু ছলছল, মুগ্ধ তন্থ মরি যায়, অস্তর কেবল অঙ্গের সীমান্ত-প্রান্তে উদ্ভাসিয়া উঠে, এখনি ইজিয়বন্ধ বুঝি টুটে টুটে । ○○