পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ত্রয়োবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১৩০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


》 이 রবীন্দ্র-রচনাবলী এমন লজার কথা বলিতেও নাই— তোমরা ভোল না শুধু ভুলি আমরাই । এই কথা স্পষ্ট দিছ কয়ে, স্বষ্টি কন্তু নাহি ঘটে একেবারে বিণ্ডস্কেরে লয়ে । পূর্ণতা আপন কেজে স্তব্ধ হয়ে থাকে, কারেও কোথাও নাহি ডাকে । অপূর্ণের সাথে দ্বন্দ্ৰে চাঞ্চল্যের শক্তি দেয় তারে, রসে রূপে বিচিত্র অণকারে । এরে নাম দিয়ে মোহ ষে করে বিদ্রোহ এড়ায়ে নদীর টান সে চাহে নদীরে, পড়ে থাকে তীরে । পুরুষ ষে ভাবের বিলাসী, মোহতরী বেয়ে তাই স্বধাসাগরের প্রাস্তে আসি অা ভাসে দেখিতে পায় পরপারে অরূপের মায়া অসীমের ছায়া । অমুতের পাত্র তার ভরে ওঠে কানায় কালায় স্বল্প জানা ভুরি অজানায় ।” কোনো কথা নাহি ব’লে স্বন্দরী ফিরায়ে মুখ দ্রুত গেল চলে । পরদিন বটের পাতায় গুটিকত সদ্যফোটা বেলফুল রেখে গেল পায় । বলে গেল, “ক্ষমা করে, আবুঝের মতো মিছেমিছি বকেছিহু কত ।* ঢেলা আমি মেরেছিছ চৈত্রে-ফোটা কাঞ্চনের ভালে, ভারি প্রতিবাদে ফুল ঝরিল এ স্পর্ধিত কপালে । নিয়ে এই বিবাজের দান এ বসন্তে চৈত্র মোর হল অবসান । এপ্রিল, ১৯৩৯ ] 卤