পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ত্রয়োবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১৪৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চঙালিকা প্রথম দৃশ্য মা। প্রকৃতি, ও প্রকৃতি ! গেল কোথায় ! কী জানি কী হল মেয়েটার। ঘরে দেখতেই পাই নে । প্রকৃতি । এই-যে, মা, এখানেই আছি । মা ! কোথায় ! প্রকৃতি । এই-যে কুয়োতলায় । ম। আশ্চর্ষ করলি তুই । বেলা গেল দুপুর পেরিয়ে, কাঠফাট রোদ, মাটি উঠেছে তেতে, পা ফেলা যায় না। ঘরের জল কোন সকালে তোলা হয়ে গেছে। পাড়ার মেয়েরা সবাই জল নিয়ে গেল ঘরে । ঐ দেখ, ঠোট মেলে গরমে কাক ধুকছে আমলকিগাছের ডালে । তুই এই বৈশেখের রোদ পোয়াচ্ছিল ৰিনি কাজে । পুরাণকথা শুনেছি, উমা তপ করেছিলেন ঘর ছেড়ে বাইরে, রোদে পুড়ে ; তোর কি एछांझे ट्ल । প্রকৃতি । হা, মা, তপ করছি তো বটে । মা ! অবাক করলে ! কার জন্তে । প্রকৃতি । যে আমাকে ডাক দিয়েছে । গান ষে আমারে দিয়েছে ডাক, দিয়েছে ডাক, বচনহারা আমাকে ৰে দিয়েছে বাক । যে আমারি নাম জেনেছে ওগো তারি নামখানি মোর হৃদয়ে থাক্ ॥ गां । किएनव्र छांक । প্রকৃতি । আমার মনের মধ্যে বাজিয়ে দিয়ে গেছে "জল দাও’ । মা । পোড়া কপাল ! তোকে বলেছে ‘জল দাও’ ! কে শুনি । তোর আপন জাতের কেউ ?