পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (দ্বাদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১৮১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


:ురి রবীন্দ্র-রচনাবলী এর উপর জবাব চলে না। এর অকপট উত্তরটা ছিল এই যে, নীরজার হাতে হল মালীর কাজ চলত ভালোই, কিন্তু সরলার হাতে একেবারেই চলে না। এমন-কি, ওকে সে অপমান করে ঔদাসীন্য দেখিয়ে । মালী এটা বুঝে নিয়েছিল যে, এ আমলে ঠিকমত কাজ না করলেই ও-আমলের মনিব হবেন খুশি । এ যেন কলেজ বয়কট করে পাস না করার দামটাই ডিগ্রি পাওয়ার চেয়ে বড়ো হয়েছে। সরল রাগ করতে পারত কিন্তু রাগ করলে না। সে বোঝে বউদিদির বুকের ভিতরট টনটন করছে। নিঃসন্তান মায়ের সমস্ত হৃদয় জুড়েছে যে বাগান, দশ বছর পরে আজ এত কাছে আছে, তৰু এই বাগানের থেকে নির্বাসন। চোখের সামনেই নিষ্ঠুর বিচ্ছেদ । নীরজা বললে, “দাও, বন্ধ করে দাও ওই জানলা । সরলা বন্ধ করে দিয়ে জিজ্ঞাসা করলে, “এইবার কমলালেবুর রস নিয়ে আসি ?” “না, কিছু আনতে হবে না, এখন যেতে পারে।” সরল ভয়ে ভয়ে বললে, “মকরধ্বজ খাবার সময় হয়েছে।” “না দরকার নেই মকরধ্বজ। তোমার উপর বাগানের আর কোনো কাজের ফরমাশ আছে নাকি ৷” “গোলাপের ডাল পুতিতে হবে ।” নীরজা একটু খোটা দিয়ে বললে, “তার সময় এই বুঝি ! এ বুদ্ধি তাকে দিলে কে শুনি ।” সরল মৃদুস্বরে বললে, “মফস্বল থেকে হঠাৎ অনেকগুলো অর্ডার এসেছে দেখে কোনোমতে আসছে বর্ষার অাগেই বেশি করে গাছ বানাতে পণ করেছেন। আমি বারণ করেছিলুম।” “বারণ করেছিলে বুঝি! আচ্ছা, আচ্ছা, ডেকে দাও হল। মালীকে ৷” এল হল মালী। নীরজা বললে, “বাৰু হয়ে উঠেছ ? গোলাপের ডাল পুততে হাতে খিল ধরে । দিদিমণি তোমার অ্যাসিস্টেন্ট মালী নাকি। বাৰু শহর থেকে ফেরবার আগেই যতগুলো পারিস ডাল পুতবি, আজ তোদের ছুটি নেই বলে দিচ্ছি। পোড়া ঘাসপাতার সঙ্গে বালি মিশিয়ে জমি তৈরি করে নিস ঝিলের ডান পাড়িতে।” মনে মনে স্থির করলে এইখানে শুয়ে-শুয়েই গোলাপের গাছ সে তৈরি করে তুলবেই। হল মালীর আর নিষ্কৃতি নেই। 柳 হঠাৎ হল প্রশ্রয়ের হাসিতে মুখ ভরে বললে, “বউদিদি, এই একটা পিতলের ঘটি। কটকের হরম্বন্দর মাইতির তৈরি। এ জিনিসের দরদ তুমিই বুঝবে। তোমার ফুলদানি মানাবে ভালো।” s