পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (দ্বাদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৪০৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


○ケや রবীন্দ্র-রচনাবলী বলে না। শ্ৰীশ, প্রিয়, পরান প্রভৃতিও এইরূপ। বাংলা নামের বিকার সম্বন্ধে কোনো পাঠক আলোচনা সম্পূর্ণ করিয়া দিলে আনন্দিত হইব। স্বার্থে আ প্রত্যয়ের উদাহরণ দেওয়া গেছে, তাহাতে অর্থের পরিবর্তন হয় না । আবার, অা প্রত্যয়ে অর্থের কিছু পরিবর্তন ঘটে এমন উদাহরণও আছে ; যেমন, হাত হইতে হাতা ( রন্ধনের হাতা, জামার হাত, অর্থাৎ হাতের মতো পদার্থ) ঠ্যাঙ হইতে ঠ্যাঙ ( ঠ্যাঙের ন্যায় পদার্থ ) ভাত হইতে ভাতা (খোরাকি ), বাস হইতে বাসা, ধোব হইতে ধোবা, চাষ হইতে চাষা । ধাতুর উত্তর আ প্রত্যয়যোগে ক্রিয়াবাচক বিশেষ বিশেষণের স্বষ্টি হয় ; বাধ, ধাতুর উত্তর আ প্রত্যয় করিয়া বাধা, ঝর ধাতুর উত্তর আ প্রত্যয় করিয়া ঝরা। ইহার বিশেষ্য বিশেষণ উভয় ভাবেই ব্যবহৃত হয়। বিশেষণ যেমন, বাধা হাত ; বিশেষ্য যেমন, হাত বাধা । দ্রষ্টব্য এই যে, কেবল একমাত্রিক অর্থাৎ monosyllabic ধাতুর উত্তর এইরূপ আ প্রত্যয় হইয়া দুই অক্ষরের বিশেষ্য বিশেষণ স্বষ্টি করে ; যেমন ধর মার চল বল হইতে ধরা মারা চলা বলা । বহুমাত্রিক ধাতু বা ক্রিয়াবাচক শব্দের উত্তর আ সংযোগ হয় না; যেমন, আঁচড় হইতে আঁচড়া আছাড় হইতে আছড়া হয় না। কিন্তু শুদ্ধমাত্র বিশেষণরূপে হইতে পারে ; যেমন, থ্যাংলা মাংস, কোকড়া চুল, বাঘ-আঁচড়া গাছ, নেই-আঁকুড়া লোক ( ন্যায়-আঁকড়া অর্থাৎ নৈয়ায়িক তার্কিক ) । ক্রিয়াবাচক বিশেষ বিশেষণের দৃষ্টান্ত উপরে দেওয়া গেল। আ প্রত্যয়যোগে নিপন্ন পদার্থবাচক ও গুণবাচক বিশেষ্যের দৃষ্টান্ত দুই-একটি মনে পড়িতেছে ; তাওয়৷ ( যাহাতে রুটিতে তা দেওয়া যায় ), দাওয়া ( দাবি, অর্থাং দাও বলিবার অধিকার ), আছড়া ( অঁাটি হইতে ধান আছড়াইয়া লইয়া যাহা অবশিষ্ট থাকে ) । বিশিষ্ট অর্থে আ প্রত্যয় হইয়া থাকে ; যথা তেলবিশিষ্ট তেল, বেতালবিশিষ্ট বেতাল, বেস্বরবিশিষ্ট বেস্থরা, জলময় জলা, কুনবিশিষ্ট নোনা (লবণাক্ত ), আলোকিত আল, রোগযুক্ত রোগ, মলযুক্ত ময়লা, চালযুক্ত চালা (ঘর), মাটিযুক্ত মাটিয়া (মেটে), বালিযুক্ত বালিয়া ( বেলে ), দাড়যুক্ত দাড়িয়া ( দেড়ে )। * বৃহৎ অর্থে আ প্রত্যয় ; যথা, হাড়। ( ক্ষুদ্র হাড়ি ) ; নোড়া ( লোষ্ট্র হইতে ; ক্ষুদ্র, মুড়ি )। আন প্রত্যয় আন প্রত্যয়ের দৃষ্টান্ত : যোগান চাপান চালান জানান হেলান ঠেসান মানান। এগুলি ছাড়া একপ্রকার বিশেষ পদবিন্যাসে এই আন প্রত্যয়ের ব্যবহার দেখা যায়।