পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (দ্বাদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৪৪০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সমাজ 8 ఫి শয্যাসনমলংকারং কামং ক্রোধমনার্জবং দ্রোহভাবং কুচর্যাঞ্চ স্ত্ৰীভো মনুরকল্পয়ং । । শয্যা, আসন, অলংকার, কাম, ক্রোধ, কুটিলতা, পরহিংসা ও কুৎসিত আচার স্ত্রীলোক হইতে হয় ইহা মনু কল্পনা করিয়াছেন । নাস্তি স্ত্রীণাং ক্রিয় মন্ত্রৈরিতি ধর্মোব্যবস্থিতঃ নিরিক্রিয়াহমন্ত্রাশ্চ স্ত্রিয়োহনৃতমিতি স্থিতিঃ । যেহেতুক স্ত্রীলোকের মন্ত্রদ্বারা কোনে ক্রিয়া নাই ধর্মের এইরূপ ব্যবস্থা, অতএব ধৰ্মজ্ঞানহীন মন্ত্রহীন স্ত্রীগণ অমৃত, মিথ্যা পদার্থ। এ-সকল শ্লোকের দ্বার স্ত্রীলোকের সম্মান কিছুমাত্র প্রকাশ পায় না। চন্দ্রনাথবাৰু র্তাহার প্রবন্ধের একস্থলে হিন্দুবিবাহের সহিত কোমতের মতের তুলনা করিয়াছেন। হিন্দুশাস্ত্র সম্বন্ধে আমার জ্ঞান যতদূর কোম্যশাস্ত্র সম্বন্ধে তাহ অপেক্ষাও অনেক অল্প, কিন্তু চন্দ্রনাথবাবুই এককথায় স্ত্রীজাতি সম্বন্ধে কোমতের মত ব্যক্ত করিয়াছেন। সেই স্থানটি উদ্ধত করি :

  • বিবাহের উদ্যে ও আলপ্তকতা সম্বন্ধে হিন্দুশাস্ত্রকারদিগের মত যে কতদূর পাক তাহা এতদিনের পর যুরোপে কেবল কোমৃতের শিন্যেরা কিয়ৎপরিমাণে বুঝিতে সক্ষম হইয়াছেন। কোমং মুক্তকণ্ঠে বলিয়ছেন যে, ধর্মপ্রবৃত্তি এবং হৃদয়ের গুণসম্বন্ধে স্ত্রী পুরুষ অপেক্ষা অনেক গুণে শ্রেষ্ঠ এবং সেইজন্ত স্ত্রীর সাহায্য ব্যতিরেকে পুরুষের নৈতিক ও আধ্যাত্মিক জীবন পূর্ণতা লাভ করিতে পারে না। বলা বাহুল্য কোমং মুক্তকণ্ঠে যাহা বলিয়াছেন মন্থ মুক্তকণ্ঠে ঠিক তাহ বলেন নাই। মহাভারতে ভীষ্ম ও যুধিষ্ঠিরও মুক্তকণ্ঠে কোমতের মত সমর্থন করেন নাই। অনুশাসনপর্বে অষ্টত্রিংশত্তম অধ্যায়ে স্ত্রীচরিত্র সম্বন্ধে ভীষ্ম ও যুধিষ্ঠিরে যে-কথোপকথন হইয়াছে, বর্তমান সমাজে তাহার সমগ্র ব্যক্ত করিবার যোগ্য নহে। অতএব তাহার

স্থানে স্থানে পাঠ করি। কালীসিংহ কর্তৃক অমুবাদিত মহাভারত আমার অবলম্বন । , কামিনীগণ সংকুলসস্তৃত রূপসম্পন্ন ও সধবা হইলেও স্বধৰ্ম পরিত্যাগ করে । উহাদের অপেক্ষা পাপপরায়ণ আর কেহই নাই। উহারা সকল দোষের আকর। উহাদের অন্তঃকরণে কিছুমাত্র ধর্মভয় নাই । তুলাদণ্ডের একদিকে যম, বায়ু, মৃত্যু, পাতাল, বাড়বানল, ক্ষুরধার, বিষ, সর্প ও বহ্নি এবং অপরদিকে স্ত্রীজাতিরে সংস্থাপন করিলে স্ত্রীজাতি কখনই ভয়ানকত্বে উহাদের অপেক্ষ নুনি হইবে না। বিধাতা যেসময় স্বষ্টিকার্যে প্রবৃত্ত হইয়া মহাভূতসমুদয় ও স্ত্রীপুরুষের স্বষ্টি করেন, সেই সময়েই স্ত্রীদিগের দোষের সৃষ্টি করিয়াছেন । ধর্মরাজ যুধিষ্ঠির বলিতেছেন : পুরুষে রোদন করিলে উহার কপটে রোদন এবং হাস্ত করিলে উহার কপটে হাস্ত করিয়া থাকে ।