পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (দ্বাদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৫১৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সমাজ i8 عఫి(t কেহ বলিতে পারেন, তবে তো কথাটা সহজ হইল। নিজের প্রকৃতিরক্ষার জন্য চেষ্টার দরকার হয় না তো ? হয়। তাহারও সাধনা আছে। স্বাভাবিক হইবার জন্তও অভ্যাস করিতে হয় । কারণ, যে-লোক দুর্বল, তাহাকে নানাদিকে নানাশক্তি ৰিক্ষিপ্ত করিয়া তোলে। সে নিজেকে ব্যক্ত না করিয়া পাচজনেরই অনুকরণ করিতে থাকে। পাচজনের আকর্ষণ হইতে আপনাকে উদ্ধার করিতে হইলে নিজের প্রকৃতিকে সবল সক্ষম করিয়া তুলিতে হয় ; সে একদিনের কাজ নহে, বিশেষত বাহিরের শক্তি যখন প্রবল । কবি প্রথম বয়সে এর ওর নকল করিয়া মরে , অবশেষে প্রতিভার বিকাশে যখন সে নিজের স্বরটি ঠিক ধরিতে পারে তখনই সে অমর হয়। তখনই সে স্বকীয় কাব্যসম্পদে তার নিজেরও লাভ, অন্ত সকলেরও লাভ । আমরা যতদিন ইংরেজের নকলে সব কাজ করিতে যাইব, ততদিন এমন-কিছু হইবে না যাহাতে আমাদের মুখ আছে বা ইংরেজের লাভ আছে । যখন নিজের মতো হইব, স্বাভাবিক হইব, তখন ইংরেজের কাছ হইতে যাহা লইব তাহ নূতন করিয়া ইংরেজকে ফিরাইয়া দিতে পারিব। সে দিন নিঃসন্দেহই আসিবে । আসিবে যে তাহার শুভলক্ষণ এই দেখিতেছি, আমাদের পোলিটিক্যাল আন্দোলনের নেশা অনেকটা ছুটিয়া গেছে ; এখন আমরা স্বাধীন চেষ্টায় স্বাধীন সন্ধানে আমাদের ইতিহাসবিজ্ঞানদর্শন আলোচনায় প্রবৃত্ত হইতেছি। আমাদের ধর্ম, আমাদের সমাজের প্রতিও দৃষ্টি পড়িয়াছে। ত্ৰিবেদী মহাশয় বলিয়াছেন, অস্বাভাবিকতাই আমাদের ব্যাধি। অর্থাৎ ইংরেজিশিক্ষাকে আমরা প্রকৃতিগত করিতে পারি নাই, সেই শিক্ষাই আমাদের প্রকৃতিকে আচ্ছন্ন করিতেছে ; সেইজন্যই বিলাতি সভ্যতার বাহভাগ লইয়া আছি, তাহার মূল মহত্বকে আয়ত্ত করিতে পারি নাই । কিন্তু তিনি আর-একটা কথা বলেন নাই। কেবল ইংরেজ-সভ্যতা নহে, আমাদের দেশীয় সভ্যতা সম্বন্ধেও আমরা অস্বাভাবিক। আমরা তাহার বাহিক ক্ষণিক অংশ লইয়া যে-আড়ম্বর করিতেছি তাহা আমাদের পক্ষে স্বাভাবিক নহে, স্বাভাবিক হইতেই পারে না। কারণ, মসুর সময়ে যাহা সাময়িক আমাদের সময়ে তাহ অসাময়িক, মচুর সময়ে যাহা চিরন্তন, আমাদের সময়েও তাহা চিরন্তন । এই-ষে নিত্যানিত্য-কালাকাল-বিবেক, ইহাই আমাদের হয় নাই । কেবল সেইজন্তই ইংরেজের কাছ হইতে আমরা ভালোরূপ আদায় করিতে পারিতেছি না, ভারতবর্ষের কাছ হইতেও পারিতেছি না। কিন্তু আমার এ কথার মধ্যে অত্যুক্তি আছে। কালের সমস্ত ক্রিয়াপ্রতিক্রিয়া