পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (দ্বাদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৬০০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শব্দতত্ত্ব (이 이 থাকেন, তাহাদিগকে খামক জবাবদিহিতে ফেলিলেন কেন । প্রতিবাদী মহাশয় যদি কোনো সুযোগে পরিষৎ পত্রিকার প্রফ সংগ্ৰহ করিয়া তাহাতে এই ভুল দেখিয়া থাকেন তবে সেজন্যও আমাকে ক্ষমা করিবেন। ছাপার ভুলে যদি দণ্ডিত হইতে হয়, তবে দণ্ডশালায় পণ্ডিতমহাশয়েরও সঙ্গ লাভ হইতে বঞ্চিত হইব না । এরূপ ছোটে। ছোটো ভুল খুটিয়া মূল প্রবন্ধের বিচার সংগত নহে। থ্যালে৷ শব্দটা রাখিলে বা বাদ দিলে আসল কথাটার কিছুই আসে যায় না। বাংলা আল প্রত্যয়ের দৃষ্টান্তস্থলে ভ্রমক্রমে যদি, বাচাল সংস্কৃত কথাটা বসিয়া থাকে তবে সেটাকে অনায়াসে উৎপাটন করিয়া ফেলা যায়, তাহাতে বিবেচ্য বিষয়ের মূলে আঘাত করে ন। ছাগল যদি সংস্কৃত শব্দ হয়, তবে তাহাকে বাংলা ল প্রত্যয়ের দৃষ্টাস্তগণ্ডি হইতে বিনা ক্লেশে মুক্ত করিয়া দেওয়া যাইতে পারে, খাটি বাংলা দৃষ্টান্ত অনেক পাওয়া যাইবে । ধানের খেতের মধ্যে যদি দুটো-একটা গত বৎসরের যবের শীষ উঠিয়া থাকে, তাহাকে রাখ বা ফেলিয়া দাও, বিশেষ আসে যায় না, তাই বলিয়াই ধামের খেতকে যবের থেত বলা চলে না । মোট কথাটার এবং আসল কথাটার উপর দৃষ্টি না রাখিয়া অনুবীক্ষণ হাতে ছোটো ছোটো খুত ধরিবার চেষ্টায় বেড়াইলে খুত সর্বত্রই পাওয়া যায়। যে-গাছ হইতে ফল পাড়। যাইতে পারে, সে-গাছ হইতে কীটও পাওয়া সম্ভব, কিন্তু সেই কীটের দ্বারা গাছের বিচার করা যায় না। একটি গল্প মনে পড়িল। কোনো রাজপুত গোফে চাড়া দিয়া রাস্তায় চলিয়াছিল। একজন পাঠান আসিয়া বলিল, লড়াই করে। রাজপুত বলিল, খামক লড়াই করিতে আসিলে, ঘরে কি স্ত্রী পুত্র নাই। পাঠান বলিল, আছে বটে, আচ্ছ। তাহদের একটা বন্দোবস্ত করিয়া আসিগে । বলিয়া বাড়ি গিয়া সব কটাকে কাটিয়াকুটিয়া নিঃশেষ করিয়া আসিল । পাঠান দ্বিতীয়বার লড়াইয়ের প্রস্তাব করিতেই রাজপুত জিজ্ঞাসা করিল, আচ্ছ। ভাই, তুমি যে লড়াই করিতে বলিতেছ, আমার অপরাধটা কী। পাঠান বলিল, তুমি যে আমার সামনে গোফ তুলিয়। আছ, সেই অপরাধ। রাজপুত তৎক্ষণাৎ গোফ নামাইয়া দিয়া কহিল, আচ্ছ ভাই, গোফ নামাইয়া দিতেছি। প্রতিবাদী মহাশয়ের কাছে আমারও প্রশ্ন এই যে, ওই ছাগল বাচাল’ ‘থ্যাংলা’ এবং নৈমিত্তিক’ শব্দ কয়েকটি লইয়াই কি আমার সঙ্গে তাহার বিবাদ । আচ্ছ। আমি গোফ নামাইয়। লইতেছি— ও শব্দ কয়টা একেবারেই ত্যাগ করিলাম। তাহাতে মূল প্রবন্ধের কোনোই ক্ষতিবৃদ্ধি হইবে না। ইহাতে বিবাদ মিটিবে কি। প্রতিবাদী বলিবেন, অকিঞ্চিৎকর কথাগুলো বাংলায় ঢোকাইয়৷ তুমি ভাষাটাকে মাটি করিবার