পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (দ্বাদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৭৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বলাকা শুনিতেছি আমি এই নিঃশব্দের তলে শূন্তে জলে স্থলে অমনি পাথার শব্দ উদাম চঞ্চল । छूभंझल মাটির আকাশ পরে ঝাপটিছে ডান , মাটির আঁধার-নীচে কে জানে ঠিকানা মেলিতেছে অস্কুরের পাথ লক্ষ লক্ষ বীজের বলাক । দেখিতেছি আমি আজি এই গিরিরাজি, এই বন, চলিয়াছে উন্মুক্ত ডানায় দ্বীপ হতে দ্বীপান্তরে, অজানা হইতে অজানায়। নক্ষত্রের পাথার স্পনদনে চমকিছে অন্ধকার আলোর ক্রন্দনে । শুনিলাম মানবের কত বাণী দলে দলে অলক্ষিত পথে উড়ে চলে অস্পষ্ট অতীত হতে অস্ফুট স্বদুর যুগান্তরে। শুনিলাম আপন অন্তরে অসংখ্য পাখির সাথে দিনেরাতে এই বাসাছাড়া পাখি ধায় আলো-অন্ধকারে কোন পার হতে কোন পারে। ধ্বনিয়া উঠিছে শূন্ত নিখিলের পাখার এ গানে— “হেথা নয়, অন্য কোথা, অন্য কোথা, অন্য কোনখানে।” কার্তিক ১৩২২ শ্ৰীনগর ©