পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (দ্বাবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/২০৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গল্পগুচ্ছ ১৮৯ বড়োবাবু আর কন্যা পাইলেন না, আমাদেরই পরিত্যক্ত পাত্রীটিকে বিবাহ করিতেছেন । হাজরাও বিস্তর হাসিল । কিন্তু, উত্তরোত্তর নলিনের হাসির আর জোর রহিল না। তাহার হাসির মধ্যে কীট প্রবেশ করিল। একটি ক্ষুদ্র সংশয় তীক্ষু স্বরে কানে কানে বলিতে লাগিল, ‘আহা, হাতছাড়া হইয়া গেল। শেষকালে নন্দর কপালে জুটিল। ক্ষুদ্র সংশয় ক্রমশই রক্তস্ফীত জোকের মতো বড়ো হইয়া উঠিল, তাহার কণ্ঠস্বরও মোটা হইল । সে বলিল, ‘এখন আর কোনোমতেই ইহাকে পাওয়া যাইবে না, কিন্তু আসলে ইহাকে দেখিতে ভালো। ভারি ঠকিয়াছ।’ অস্তঃপুরে নলিন যখন খাইতে গেল তখন তাহার স্ত্রীর ছোটোখাটে। সমস্ত খুত মস্ত হইয়া তাহাকে উপহাস করিতে লাগিল। মনে হইতে লাগিল, স্ত্রীট। তাহাকে ভয়ানক ঠকাইয়াছে। রাওলপিণ্ডিতে যখন সম্বন্ধ হইতেছিল তখন নলিন সেই কন্যার যে ফোটে৷ পাইয়াছিল, সেইখানি বাহির করিয়া দেখিতে লাগিল। “বাহবা, অপরূপ রূপমাধুরী। এমন লক্ষ্মীকে হাতে পাইয়া ঠেলিয়াছি, আমি এত বড়ো গাধা ।” বিবাহসন্ধ্যায় আলো জালাইয়া বাজনা বাজাইয়। জুড়িতে চড়িয়া বর বাহির হইল । নলিন শুইয়া পড়িয়া গুড়গুড়ি হইতে যৎসামান্য সাস্তুনা আকর্ষণের নিস্ফল চেষ্টা করিতেছে এমন সময় হাজরা প্রসন্নবদনে হাসিতে হাসিতে আসিয়া নন্দকে লক্ষ্য করিয়া পরিহাস জমাইবার উপক্রম করিল। নলিন হাকিল, “দরোয়ান ।” হাজরা তটস্থ হইয়া দরোয়ানকে ডাকিয়া দিল । বাবু হাজরাকে দেখাইয়া দিয়া কহিল, “অবহি ইস্কো কান পকড়কে বাহার নিকাল দে৷ ” আশ্বিন ১৩ ০৭ २२> 8