পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (দ্বাবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৩১০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


२ॐ ० রবীন্দ্র-রচনাবলী দ্বিতীয় পরিচ্ছেদ দাম্পত্য কলহে চৈব বহুবারম্ভে লঘূক্রিয়া— শাস্ত্রে এইরূপ লেখে। কিন্তু দম্পতিবিশেষে ইহার ব্যতিক্রম ঘটে, অভিজ্ঞ ব্যক্তির। তাহ অস্বীকার করেন না । মন্মথবাবুর সহিত র্তাহার স্ত্রীর মধ্যে মধ্যে যে বাদপ্রতিবাদ ঘটিয়া থাকে তাহ নিশ্চয়ই কলহ, তবু তাহার আরম্ভও বহু নহে, তাহার ক্রিয়াও লঘু নহে– ঠিক অজাযুদ্ধের সঙ্গে তাহার তুলনা করা চলে না। কয়েকটি দৃষ্টান্ত দ্বারা এ কথার প্রমাণ হইবে। মন্মথবাবু কহিলেন, “তোমার ছেলেটিকে যে বিলাতি পোশাক পরাতে আরম্ভ করেছ, সে আমার পছন্দ নয়।” বিধু কহিলেন, “পছন্দ বুঝি একা তোমারই আছে। আজকাল তো সকলেই ছেলেদের ইংরেজি কাপড় ধরিয়েছে।” মন্মথ হাসিয়া কহিলেন, “সকলের মতেই যদি চলবে তবে সকলকে ছেড়ে একমাত্র আমাকেই বিবাহ করলে কেন ।” বিধু। তুমি যদি কেবল নিজের মতেই চলবে তবে এক না থেকে আমাকেই বা তোমার বিবাহ করবার কী দরকার ছিল । মন্মথ । নিজের মত চালাবার জন্তও যে অন্ত লোকের দরকার হয়। বিধু। নিজের বোঝা বহাবার জন্য ধোবার দরকার হয় গাধাকে, কিন্তু আমি তো অার— মন্মথ। (জিব কাটিয়া) আরে রাম রাম, তুমি আমার সংসার-মরুভূমির আরব ঘোড়া। কিন্তু সে প্রাণীবৃত্তান্তের তর্ক এখন থাকৃ। তোমার ছেলেটিকে সাহেব করে তুলো না। বিধু। কেন করব না। তাকে কি চাষ করব। এই বলিয়া বিধু ঘর হইতে বাহির হইয়া গেলেন। বিধুর বিধবা জা পাশের ঘরে বসিয়া দীর্ঘশ্বাস ফেলিয়া মনে করিলেন, স্বামীস্ত্রীতে বিরলে প্রেমালাপ হইয়া গেল ।