পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (দ্বাবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৩১৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গল্পগুচ্ছ Ꮥ$ ☾ টেনিস স্কট না পরে এলে যদি আপনার এত দয়া হয় তবে আমার এই টেনিস স্বটটা মিস্টার সতীশকে দান করে তার এই— এটাকে কী বলি ! তোমার এটা কী স্বট সতীশ– খিচুড়ি স্থটই বলা যাক— তা আমি সতীশের এই খিচুড়ি স্বটটা পরে রোজ এখানে আসব। অামার দিকে যদি স্বর্গের সমস্ত সূর্য চন্দ্র তারা অবাক হয়ে তাকিয়ে থাকে তবু লজ্জা করব না । সতীশ, এ কাপড়টা দান করতে যদি তোমার আপত্তি থাকে তবে তোমার দরজির ঠিকানাটা আমাকে দিয়ে। ফ্যাশনেবল ছাটের চেয়ে মিস ভাদুড়ির দয়। অনেক মূল্যবান। নলিনী । শোনো শোনো সতীশ, শুনে রাখে। কেবল কাপড়ের ছাট নয়, মিষ্ট কথার ছাদও তুমি মিস্টার নদীর কাছে শিখতে পার। এমন আদর্শ আর পাবে না। বিলাতে ইনি ডিউক ডাচেস ছাড়া আর কারে সঙ্গে কথাও কন নি। মিস্টার নন্দী, আপনাদের সময় বিলাতে বাঙালি ছাত্র কে কে ছিল। নন্দী। অামি বাঙালিদের সঙ্গে সেখানে মিশি নি । নলিনী। শুনছ সতীশ । রীতিমত সভ্য হতে গেলে কত সাবধানে থাকতে হয়। তুমি বোধ হয় চেষ্টা করলে পারবে । টেনিস স্কট সম্বন্ধে তোমার যেরকম সুহ্ম ধৰ্মজ্ঞান তাতে আশা হয় । অন্তত্ৰে গমন সতীশ । ( দীর্ঘনিশ্বাস ফেলিয়া ) নেলিকে আজ পর্যন্ত বুঝতেই পারলেম না। আমাকে দেখে ও বোধ হয় মনে মনে হাসে । আমারও মুশকিল হয়েছে, আমি কিছুতে এখানে এসে স্বস্থমনে থাকতে পারি নে— কেবলই মনে হয়, আমার টাইটা বুঝি কলারের উপরে উঠে গেছে, আমার ট্রাউজারে হাটুর কাছটায় হয়তো কুঁচকে আছে। নদীর মতো কবে আমিও বেশ ওইরকম অনায়াসে স্মৃতির সঙ্গে— নলিনী । ( পুনরায় আসিয়া ) কী সতীশ, এখনো যে তোমার মনের খেদ মিটল না। টেনিস কোর্তার শোকে তোমার হৃদয়টা যে বিদীর্ণ হয়ে গেল। হায়, কোর্তাহার হৃদয়ের সাস্তুনা জগতে কোথায় আছে— দরজির বাড়ি ছাড়া । সতীশ । আমার হৃদয়টার খবর যদি রাখতে তবে এমন কথা আর বলতে না নেলি । নলিনী । ( করতালি দিয়া ) বাহবা । মিস্টার নদীর দৃষ্টাস্তে মিষ্ট কথার আমদানি এখনই শুরু হয়েছে। প্রশ্ৰয় পেলে অত্যন্ত উন্নতি হবে ভরসা হচ্ছে। এসো, একটু কেক খেয়ে যাবে, মিষ্ট কথার পুরস্কার মিষ্টান্ন। সতীশ । না, আজ আর খাব না, আমার শরীরট। —