পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (দ্বাবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৩৩১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গল্পগুচ্ছ \ל צס স্বকুমারী। তোমরা মায়ে পোয়ে মিলে আমার ছেলের সঙ্গে লেগেছ বুঝি। ওকে তোমাদের সহ হচ্ছে না। ও গেলেই তোমরা বাচ। আমি তাই বলি, খোক৷ রোজ ডাক্তার-ক'বরাজের বোতল বোতল ওষুধ গিলছে, তবু দিন দিন এমন রোগ হচ্ছে কেন । ব্যাপারখানা আজ বোঝা গেল । চতুর্দশ পরিচ্ছেদ সতীশ । আমি তোমার কাছে বিদায় নিতে এসেছি, নেলি । নলিনী । কেন, কোথায় যাবে। সতীশ । জাহান্নমে। নলিনী । সে জায়গায় যাবার জন্য কি বিদায় নেবার দরকার হয় । যে লোক সন্ধান জানে সে তো ঘরে বসেই সেখানে যেতে পারে। আজ তোমার মেজাজটা এমন কেন। কলারটা বুঝি ঠিক হাল ফেশানের হয় নি! সতীশ । তুমি কি মনে কর আমি কেবল কলারের কথাই দিনরাত্রি চিন্তা করি। নলিনী। তাই তো মনে হয়। সেইজন্তই তো হঠাৎ তোমাকে অত্যন্ত চিস্তাশীলের মতো দেখায়। সতীশ । ঠাট্ট কোরো না নেলি, তুমি যদি আজ আমার হৃদয়ট দেখতে পেতে— নলিনী। তা হলে ডুমুরের ফুল এবং সাপের পাচ পাও দেখতে পেতাম । সতীশ । আবার ঠাট্ট ! তুমি বড়ো নিষ্ঠুর । সত্যই বলছি নেলি, আজ বিদায় নিতে এসেছি । নলিনী। দোকানে যেতে হবে ? সতীশ । মিনতি করছি নেলি, ঠাট্টা করে আমাকে দগ্ধ কোরো না। আজ আমি চিরদিনের মতো বিদায় নেব । নলিনী । কেন, হঠাং সেজন্ত তোমার এত বেশি আগ্রহ কেন। সতীশ। সত্য কথা বলি, আমি যে কত দরিদ্র তা তুমি জান না। নলিনী । সেজন্য তোমার ভয় কিসের । আমি তো তোমার কাছে টাকা ধার চাই নি । সতীশ । তোমার সঙ্গে আমার বিবাহের সম্বন্ধ হয়েছিল— নলিনী। তাই পালাবে ? বিবাহ না হতেই হৃৎকম্প । সতীশ । আমার অবস্থা জানতে পেরে মিস্টার ভাদুড়ি আমাদের সম্বন্ধ ভেঙে দিলেন ।