পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (দ্বাবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৪৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সেঁজুতি HL কেটে গেছে বেলা শুধু চেয়ে-থাকা মধুর মৈতালিতে, নীল আকাশের তলায় ওদের সবুজ বৈতালিতে। সকালবেলার প্রথম আলোয় বিকালবেলার ছায়ায় দেহপ্রাণমন ভরেছে সে কোন অনাদি কালের মায়ায়। পেয়েছি ওদের হাতে দূরজনমের আদিপরিচয় এই ধরণীর সাথে। অসীম আকাশে যে প্রাণ-কাপন অসীম কালের বুকে নাচে অবিরাম, তাহারি বারতা শুনেছি ওদের মুখে। ষে মন্ত্রখানি পেয়েছি ওদের স্বরে তাহার অর্থ মৃত্যুর সীমা ছাড়ায়ে গিয়েছে দূরে। সেই সত্যেরই ছবি তিমিরপ্রাস্তে চিত্তে আমার এনেছে প্রভাতরবি । সে রবিরে চেয়ে কবির সে বাণী আসে অস্তরে নামি— "যে আমি রয়েছে তোমার আমায় সে অামি আমারি আমি’ । সে আমি সকল কালে, সে আমি সকল খানে, প্রেমের পরশে সে অসীম আমি বেজে ওঠে মোর গানে। যায় যদি তবে যাক এল যদি শেষ ডাক – অসীম জীবনে এ ক্ষীণ জীবন শেষ রেখা একে যাক, মৃত্যুতে ঠেকে যাক। যাক নিয়ে যাহা টুটে যায়, যাহা ছুটে যায়, যাহা ধূলি হয়ে লুটে ধূলি-পরে, চোরা মৃত্যুই যার অস্তরে, যাহা রেখে যায় শুধু ফাক— যাক নিয়ে তাহ, যাক এ জীবন, যাক। শাস্তিনিকেতন २२ शांष s७१७