পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (পঞ্চদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১৩৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বনবাণী >ペぐ。 মৌমাছির গুঞ্জনে গুঞ্জনে, ওগো অাম্রবন । আমার নিভৃত চিত্তে সে-ভাষী সহজে চলে আসে, মিশে যায় সংগোপনে অস্তরের আভাসে আশ্বাসে স্বপনে বেদনে, ধ্যানে মোর করে সঞ্চরণ । স্বদূর জন্মের যেন ভুলে-যাওয়া প্রিয়কণ্ঠস্বর গন্ধে তব রয়েছে সঞ্চিত, ওগো আম্রবন । যেন নাম ধ’রে কোন কানে-কানে গোপন মর্মর তাই মোরে করে রোমাঞ্চিত আজি ক্ষণে ক্ষণ । আমার ভাবনা আজি প্রসারিত তব গন্ধ সনে জনমমরণপরপার, ওগো অাম্রবন, যেথায় অমরপুরে স্বন্দরের দেউলপ্রাঙ্গণে জীবনের নিত্য-আশা সন্ন্যাসিনী, সন্ধ্যারতিক্ষণে দীপ জালি তার পুণেরে করিছে সমর্পণ। বহুকাল চলিয়াছে বসন্তের রসের সঞ্চার ওই তব মজ্জায় মজ্জায়, ওগো আম্রবন । বহুকাল যৌবনের মদোংফুল্ল পল্লীললনার আকুলিত অলক সজ্জায় জোগালে ভূষণ । শিকড়ের মুষ্টি দিয়া অঁাকড়িয়া ষে-বক্ষ পৃথ্বীর প্রাণরস কর তুমি পান, ওগো আম্রবন, '