পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (পঞ্চদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১৩৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ఏ t|సె বনবাণী পৃথ্বীর গভীর মৌন দূর শৈলে ফেলে নীল ছায়া, মধ্যাহ্নমরীচিকায় দিগন্তে খোজে সে স্বপ্নকায় । যে-মৌন নিজেরে চায় সমুদ্রের নীলিমায়, অন্তহীন সেই মৌন উচ্ছ্বসিল নীলগুচ্ছ ফুলে, দুর্গম রহস্য তার উঠিল সহজ ছন্দে দুলে। আসন্ন মিলনাশ্বাসে বধূর কম্পিত তমুখানি নীলাম্বর-অঞ্চলের গুণ্ঠনে সঞ্চিত করে বাণী । মর্মের নির্বাক কথা পায় তার নিঃসীমতা নিবিড় নির্মল নীলে ; আনন্দের সেই নীল দ্যুতি নীলমণিমঞ্জরির পুঞ্জে পুঞ্জে প্রকাশে আকুতি । অজানা পাস্থের মতো ডাক দিলে অতিথির ডাকে, অপরূপ পুষ্পোচ্ছ্বাসে হে লতা, চিনালে আপনাকে । বেল জুই শেফালিরে জানি আমি ফিরে ফিরে, কত ফাস্তুনের, কত শ্রাবণের, আশ্বিনের ভাষা তারা তো এনেছে চিত্তে, রঙিন করেছে ভালোবাসা চাপার কাঞ্চন-আভা সে-যে কার কণ্ঠস্বরে সাধা, নাগকেশরের গন্ধ সে-যে কোন বেণীবন্ধে বাধা । বাদলের চামেলি-ষে কালো আঁখিজলে ভিজে, করবীর রাঙা রঙ কঙ্কণঝংকারমুরে মাথা, কদম্বকেশরগুলি নিদ্রাহীন বেদনায় অঁাকা । めくの