পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (পঞ্চদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১৮১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পরিশেষ বিশ্বের প্রাঙ্গণে আজি ছুটি হ’ক মোর, ছিন্ন করে দাও কর্মডোর । আমি আজ ফিরিব কুড়ায়ে উচ্ছ স্থল সমীরণ যে-কুসুম এনেছে উড়ায়ে সহজে ধুলায়, পাখির কুলায় দিনে দিনে ভরি উঠে যে-সহজ গানে, আলোকের ছোওয়া লেগে সবুজের তন্থরার তানে । এই বিশ্বসত্তার পরশ, স্থলে জলে তলে তলে এই গৃঢ় প্রাণের হরষ তুলি লব অন্তরে অস্তরে, সর্বদেহে, রক্তস্রোতে, চোখের দৃষ্টিতে, কণ্ঠস্বরে, জাগরণে, ধেয়ানে, তন্দ্রায়, বিরামসমুদ্রতটে জীবনের পরমসন্ধ্যায়। এ জন্মের গোধূলির ধূসর প্রহরে বিশ্বরস-সরোবরে শেষবার ভরিব হৃদয় মন দেহ দূর করি সব কর্ম, সব তর্ক, সকল সন্দেহ, সব খ্যাতি, সকল দুরাশা, বলে যাব, ‘আমি যাই, রেখে যাই, মোর ভালোবাসা।’ ২৩ বৈশাখ ১৩৩৮ [ শাস্তিনিকেতন ] ১৬৭