পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (পঞ্চদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/২০৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পরিশেষ নির্দয়তম নিন্দার হাস, নির্মমতম দৈব, শূন্যে শূন্যে হতাশ বাতাস ফুকারে ‘নৈব নৈব’— হঠাৎ তখন কহে মোরে মন, “মিথ্যে, এ সব মিথ্যে, প্রাণে যদি রয় গান অক্ষয় সুর যদি রয় চিত্তে ।” চৌদিক করে যুদ্ধঘোষণ, দুর্গম হয় পন্থা, চিন্তায় করে রক্ত শোষণ প্রথর-নখরদস্তা, নিরানন্দের ঘিরি রহে ঘের, নাই জীবনের সঙ্গী, দৈন্ত কুরূপ করে বিদ্রুপ ব্যঙ্গের মুখভঙ্গী— মন বলে, ‘নাই ভাবনা কিছুই মিথ্যে, এ সব মিথ্যে, অস্তর-মাঝে চিরধনী তুই অস্তবিহীন বিত্তে।’ ভাষাহীন দিন কুয়াশাবিলীন— মলিন উষার স্বর্ণ, কল্পনা যত বাদুড়ের মতো রাতে ওড়ে কালে বর্ণ ; আবর্জনার অচলপুঞ্জে যাত্রার পথ রুদ্ধ, রিক্তকুসুম শুষ্ক কুঞ্জে বৈশাখ রহে কুদ্ধ— >な)○