পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (পঞ্চদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৩১৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সংযোজন কপোত কাকলিতে করুণা সঞ্চারে, কাননদেবী হল বিমনা । আমারো প্রাণে বুঝি বহেছে ওই হাওয়া, কিছু-বা কাছে আসা, কিছু-বা চলে যাওয়া, কিছু-বা স্মরি কিছু পাসরি । যে আছে যে-বা নাই আজিকে দোহে মিলি আমার ভাবনাতে ভ্ৰমিছে নিরিবিলি বাজায়ে ফাগুনের বঁাশরি । शूश्लझौ নবজাগরণ-লগনে গগনে বাজে কল্যাণশঙ্খ— এসে তুমি উষা ওগো অকলুষ, আনো দিন নিঃশঙ্ক দু্যলোকভাসানো আলোকস্থধায় অভিষেক তুমি করে বস্থধায়, নবীন দৃষ্টি নয়নে তাহার এনে দাও অকলঙ্ক । সম্মুখ-পানে নবযুগ আজি মেলুক উদার চিত্র । অমৃতলোকের দ্বার খুলে দিন চিরজীবনের মিত্র। বিশ্বের পথে আসিয়াছে ডাক, যাত্রীরা সবে যাক ধেয়ে যাক, দেহমন হতে হ’ক অপগত অবসাদ অপবিত্র । মৌন যে ছিল বক্ষে তাহার বাজুক বীণার তন্ত্র, নব বিশ্বাসে আশ্বাসহীন শুতুক বিজয়মন্ত্র । এসো আনন্দ, দুঃখহরণ, দুঃখেরে দাও করিতে বরণ, মরণতোরণ পার হয়ে পাই অমর প্রাণের পন্থ ।