পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (পঞ্চদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৪০৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রক্তকরবী \తీసె(t অন্ত দলের প্রবেশ নন্দিনী । ওগো, রঞ্জনকে এরা কোথায় রেখেছে তোমরা কি জান । প্রথম। চুপ চুপ। নন্দিনী । তোমরা নিশ্চয় জান, আমাকে বলতেই হবে। দ্বিতীয়। আমাদের কান দিয়ে যা ঢোকে মুখ দিয়ে তা বেরোয় না, তাই টিকে আছি। ওই-যে অন্ত্রের ভার নিয়ে আসছে, ওদের জিজ্ঞাসা করে। এই দলের প্রস্থান অন্য দলের প্রবেশ নন্দিনী । ওগো, একটু থামো, বলে যাও রঞ্জন কোথায় । প্রথম । শোনো বলি, লগ্ন হয়ে এসেছে। ধ্বজাপুজায় রাজাকে বেরোতেই হবে। তাকেই জিজ্ঞাসা করো। আমরা শুরুটা জানি, শেষটা জানি নে । [ প্রস্থান নন্দিনী । ( জানলায় ঘা দিয়ে ) সময় হয়েছে, দরজা খোলো । নেপথ্যে । আবার এসেছ অসময়ে। এখনি যাও, যাও তুমি । নন্দিনী । অপেক্ষা করবার সময় নেই, শুনতেই হবে আমার কথা ! নেপথ্যে। কী বলবার আছে বাইরে থেকে বলে চলে যাও । নন্দিনী । বাইরে থেকে কথার স্বর তোমার কানে পৌছয় না। নেপথ্যে । আজ ধ্বজাপুজা, আমার মন বিক্ষিপ্ত কোরো না । পুজার ব্যাঘাত হবে । যাও, যাও ! এখনি যাও । নন্দিনী । আমার ভয় ঘুচে গেছে। অমন করে তাড়াতে পারবে না । মরি সেও ভালো, দরজা না খুলিয়ে নড়ব না । নেপথ্যে। রঞ্জনকে চাও বুঝি ? সর্দারকে বলে দিয়েছি, এখনি তাকে এনে দেবে। পুজোয় যাবার সময় দরজায় দাড়িয়ে থেকে না। বিপদ ঘটবে। নন্দিনী । দেবতার সময়ের অভাব নেই, পুজোর জন্যে যুগযুগান্তর অপেক্ষ করতে পারেন। মানুষের দুঃখ মাহুষের নাগাল চায় যে। তার সময় অল্প। নেপথ্যে । আমি ক্লাস্ত, ভারি ক্লান্ত। ধ্বজাপুজায় অবসাদ ঘুচিয়ে আসব। আমাকে দুর্বল কোরো না। এখন বাধা দিলে রথের চাকায় গুড়িয়ে যাবে। নন্দিনী । ৰুকের উপর দিয়ে চাকা চলে যাক, নড়ব না।