পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (পঞ্চদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৪৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২৮ শ্ৰাবণ ১৩৩৫ মহুয়া বিপুলতর হয় সে-ধারা, গভীরতর সুরে, যতই আসে দূরে ; উদারহাসি সাগর সহে অবুঝ অবহেলা,— একদা শেষে পলাতকার খেলা বক্ষে তার মিলায় কবে, মিলনে হয় সারা— পুর্ণ হয় নিবেদনের ধারা। كص নির্ভয় আমরা দুজনা স্বৰ্গ-খেলনা গড়িব না ধরণীতে, মুগ্ধ ললিত অশ্রুগলিত গীতে। পঞ্চশরের বেদনামাধুরী দিয়ে বাসররাত্রি রচিব না মোরা প্রিয়ে ; ভাগ্যের পায়ে দুর্বলপ্রাণে ভিক্ষ না যেন যাচি । কিছু নাই ভয়, জানি নিশ্চয় তুমি আছ, আমি আছি। উড়াব উর্ধের্ব প্রেমের নিশান দুর্গম পথ-মাঝে দুর্দম বেগে, দুঃসহতম কাজে । রুক্ষ দিনের দুঃখ পাই তো পাব, চাই না শাস্তি, সাস্তুনা নাহি চাব । পাড়ি দিতে নদী হাল ভাঙে যদি, ছিন্ন পালের কাছি, মৃত্যুর মুখে দাড়ায়ে জানিব তুমি আছ, আমি আছি।