পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (পঞ্চদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৬৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মহুয়া শুকায় না রসবিন্দু প্রখর নির্দয় স্বৰ্ষতেজে, নীরস প্রস্তরমুষ্টিতলে দৃঢ়বলে রাখে সে-যে অক্ষয় সম্পদরাশি । সহস্তে উজ্জল গতি তার দুর্যোগে অপরাজিত, অবিচল বীর্ষের আধার। » cनाओं★चद्र s*२४ বাপী একদা বিজনে যুগল তরুর মূলে তৃষ্ণার জল তুমি দিয়েছিলে তুলে। আর কোনোখানে ছায়া নাহি দেখি, শুধালেম, কাছে বসিতে দিবে কি। সেদিন তোমার ঘরে ফিরিবার বেল বহে গেল বুঝি, কাজে হয়ে গেল হেলা । অদূরে হোথায় ভাঙা দেউলের ধারে পুর্ব যুগের পূজাহীন দেবতারে প্রভাত-অরুণ প্রতিদিন খোজে, শূন্ত বেদির অর্থ না বোঝে, দিন শেষ হলে সন্ধ্যাতারার আলো যে-পুজারী নাই তারে বলে, দীপ জালো। একদিন বুঝি দূরে কোন রাজধানী রচনা করেছে দীর্ঘ এ পথখানি । আজি তার নাম নাই ইতিহাসে, জীর্ণ হয়েছে বালুকার গ্রাসে, প্রান্তরশেষে শীর্ণ বনের কোলে জনপদবধূ জল নিয়ে যায় চলে। 《이