পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ষোড়শ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১৩৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পুনশ্চ যত গ্রহনক্ষত্রের দূর হতে দূরতর ঘূর্ণ্যমান স্তরে স্তরে অগণিত অজ্ঞাত শক্তির আলোড়ন আবর্তন মহাকালসমূত্রের কুলহীন বক্ষতলে, সমস্তই আমার এ চৈতন্তের শেষ সূক্ষ্ম আকম্পিত রেখার এ ধারে । এক পা তখনো আছে সে প্রান্তসীমায়, অন্য পা আমার বাড়িয়েছি রেখার ও ধারে, সেখানে অপেক্ষা করে অলক্ষিত ভবিষ্যৎ লয়ে দিনরজনীর অন্তহীন অক্ষমালা আলো-অন্ধকারে-গাথা । অসীমের অসংখ্য যা-কিছু সত্তায় সত্তায় গাথা প্রসারিত অতীতে ও অনাগতে । নিবিড় সে সমস্তের মাঝে অকস্মাৎ আমি নেই। এ কি সত্য হতে পারে। উদ্ধত এ নাস্তিত্ব যে পাবে স্থান এমন কি অণুমাত্র ছিদ্র আছে কোনোখানে । সে ছিদ্র কি এতদিনে ডুবাতো না নিখিলতরণী মৃত্যু যদি শূন্ত হত, যদি হত মহাসমগ্রের রূঢ় প্রতিবাদ । ર૭ ভাদ্র 〉○○。 S२७