পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ষোড়শ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১৩৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পুনশ্চ 〉、" ভক্ত বললে, সময় এসেছে। কিসের সময় ? যাত্রার । ওরা বসে ভাবলে । অর্থ বুঝলে না, আপন আপন মনের মতো অর্থ বানিয়ে নিলে। ভোরের স্পর্শ নামল মাটির গভীরে, বিশ্বসত্তার শিকড়ে শিকড়ে কেঁপে উঠল প্রাণের চাঞ্চল্য । কে জানে কোথা হতে একটি অতি সূক্ষ্মস্বর সবার কানে কানে বললে, চলে সার্থকতার তীর্থে। এই বাণী জনতার কণ্ঠে কণ্ঠে একটি মহৎ প্রেরণায় বেগবান হয়ে উঠল । পুরুষেরা উপরের দিকে চোখ তুললে, জোড় হাত মাথায় ঠেকালে মেয়েরা। শিশুর করতালি দিয়ে হেসে উঠল । প্রভাতের প্রথম আলো ভক্তের মাথায় সোনার রঙের চন্দন পরালে ; সবাই বলে উঠল, ভাই, আমরা তোমার বন্দনা করি। , 8 যাত্রীর চারি দিক থেকে বেরিয়ে পড়ল— সমুদ্র পেরিয়ে, পর্বত ডিঙিয়ে, পথহীন প্রাস্তর উত্তীর্ণ হয়ে— এল নীলনদীর দেশ থেকে, গঙ্গার তীর থেকে, তিব্বতের হিমমজ্জিত অধিত্যক থেকে, প্রাকাররক্ষিত নগরের সিংহদ্বার দিয়ে, লতাজালজটিল অরণ্যে পথ কেটে । কেউ আসে পায়ে হেঁটে, কেউ উটে, কেউ ঘোড়ায়, কেউ হাতিতে, কেউ রথে চীনাংশুকের পতাকা উড়িয়ে । নানা ধর্মের পূজারি চলল ধুপ জালিয়ে, মন্ত্র পড়ে। রাজা চলল, অমুচরদের বর্শাফলক রৌদ্রে দীপ্যমান, ভেরী বাজে গুরু গুরু মেঘমন্দ্রে ।