পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ষোড়শ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১৮৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১৭৬. . রবীন্দ্র-রচনাবলী শৈলবালা । আজ্ঞে মশায়, আপনার সহধর্মিণীর সঙ্গে আমার বিশেষ সম্বন্ধ আছে। (অক্ষয়ের সঙ্গে শেক-হাও,) মুখুজ্জেমশায়, চিনতে তো পারলে না ? পুরবালা । অবাক করলি । লজ্জা করছে না ? শৈলবালা। দিদি, লজ্জা যে স্ত্রীলোকের ভূষণ— পুরুষের বেশ ধরতে গেলেই সেট পরিত্যাগ করতে হয় । তেমনি আবার মুখুজ্জেমশায় যদি মেয়ে সাজেন উনি লজ্জায় মুখ দেখাতে পারবেন না। রসিকদাদা, চুপ করে রইল যে ? রসিক। আহা, শৈল যেন কিশোর কন্দপ। যেন সাক্ষাৎ কুমার, ভবানীর কোল থেকে উঠে এল । ওকে বরাবর শৈল বলে দেখে আসছি, চোখের অভ্যাস হয়ে গিয়েছিল ; ও সুন্দরী কি মাঝারি কি চলনসই সে কথা কখনো মনেও ওঠে নি—আজ ঐ বেশটি বদল করেছে বলেই তে ওর রূপখানি ধরা দিলে । পুরোদিদি, লজ্জার কথা কী বলছিস, আমার ইচ্ছে করছে ওকে টেনে নিয়ে ওর মাথায় হাত দিয়ে আশীৰ্বাদ করি। অক্ষয়। ( স্নেহাভিষিক্ত গাম্ভীর্যের সহিত ছদ্মবেশিনীকে ক্ষণকাল নিরীক্ষণ করিয়া ) সত্যি বলছি শৈল, তুমি যদি আমার খালী না হয়ে আমার ছোটাে ভাই হতে তা হলেও আমি আপত্তি করতুম না। শৈলবালা । ( ঈষৎ বিচলিত হইয়া ) আমিও না মুখুজ্জেমশায়। পুরবালা। (শৈলকে বুকের কাছে টানিয়া) এই বেশে তুই কুমার-সভার সভ্য হতে যাচ্ছিস ? শৈলবালা । অন্য বেশে হতে গেলে যে ব্যাকরণের দোষ হয় দিদি। কী বল রসিকদাদ । * রসিক। তা তো বটেই, ব্যাকরণ বঁচিয়ে তো চলতেই হবে । ভগবান পাণিনি বোপদেব এর কী জন্যে জন্মগ্রহণ করেছিলেন । কিন্তু ভাই, শ্ৰীমতী শৈলবালার উত্তর চাপকান প্রত্যয় করলেই কি ব্যাকরণ রক্ষে হয়। অক্ষয়। নতুন মুগ্ধবোধে তাই লেখে। আমি লিখেপড়ে দিতে পারি, চিরকুমার-সভার মুগ্ধদের কাছে শৈল যেমন প্রত্যয় করাবে তারা তেমনি প্রত্যয় যাবেন। কুমারদের ধাতু আমি জানি কিনা। পুরবালা । ( একটুখানি দীর্ঘনিশ্বাস ফেলিয়া) তোর মুখুজ্জেমশায়কে আর এই বুড়ো সমবয়সীটিকে নিয়ে তোর খেলা তুই আরম্ভ কবৃ= আমি মার সঙ্গে কাশী চললুম। পুৱৰাল জিনিসপত্র ওহাইতে গেল, এমন সময় নৃপবাল ও নীরবালা ঘরে প্রবেশ করিরাই পলায়নোন্তত হইল নীয় দরজার আড়াল হইতে আর-একবার ভালো করিয়৷ তাকাইয়া মেজদিদি বলির ছুটিয়া আসিল