পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ষোড়শ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/২০৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


〉ぬと。 রবীন্দ্র-রচনাবলী শ্ৰীশ । চন্দ্রবাবু, বস্থন— চন্দ্রবাবু না শ্ৰীশবাবু, বসতে পারছি নে, আমার একটু কাজ আছে। আর-একটি আমাদের করতে হচ্ছে— গোরুর গাড়ি, টেকি, তাত প্রভৃতি আমাদের দেশী অত্যাবস্তক জিনিসগুলিকে একটু-আধটু সংশোধন করে যাতে কোনো অংশে তাদের সস্তা বা মজবুত বা বেশি উপযোগী করে তুলতে পারি সে চেষ্টা আমাদের করতে হবে। এবার গ্রীষ্মের অবকাশে কেদারবাবুদের কারখানায় গিয়ে প্রত্যহ আমাদের কতকগুলি পরীক্ষা করা চাই। শ্ৰীশ । চন্দ্রবাবু, অনেকক্ষণ দাড়িয়ে আছেন— চৌকি অগ্রসর-করণ চন্দ্রবাবু না না, আমি এখনই যাচ্ছি। দেখে, আমার মত এই যে, এই-সমস্ত গ্রামের ব্যবহার্য সামান্য জিনিসগুলির যদি আমরা কোনো উন্নতি করতে পারি তা হলে তাতে করে চাষাদের মনের মধ্যে যেরকম আন্দোলন হবে বড়ে বড়ো সংস্কারকার্যেও তেমন হবে না। তাদের সেই চিরকালের টেকি-ঘানির কিছু পরিবর্তন করতে পারলে তবে তাদের সমস্ত মন সজাগ হয়ে উঠবে, পৃথিবী যে এক জায়গায় দাড়িয়ে নেই এ তারা বুঝতে পারবে— o শ্ৰীশ । চন্দ্রবাবু, বসবেন না কি । চন্দ্রবাবু থাক-না। একবার ভেবে দেখো, আমরা যে এতকাল ধরে শিক্ষা পেয়ে আসছি, উচিত ছিল আমাদের টেকি কুলে থেকে তার পরিচয় আরম্ভ হওয়া । বড়ো বড়ো কল-কারখানা তো দূরের কথা, ঘরের মধ্যেই আমাদের সজাগ দৃষ্টি পড়ল না। আমাদের হাতের কাছে যা আছে আমরা না তার দিকে ভালো করে চেয়ে দেখলুম, না তার সম্বন্ধে চিন্তা করলুম। যা ছিল তা তেমনিই রয়ে গেছে। মানুষ অগ্রসর হচ্ছে অথচ তার জিনিসপত্র পিছিয়ে থাকছে, এ কখনো হতেই পারে না। আমরা পড়েই আছি— ইংরেজ আমাদের কাধে করে বহন করছে, তাকে এগোনে বলে না । ছোটোখাটে৷ সামান্য গ্রাম্য জীবনযাত্র পল্লীগ্রামের পঙ্কিল পথের মধ্যে বদ্ধ হয়ে অচল হয়ে আছে, আমাদের সন্ন্যাসীসম্প্রদায়কে সেই গোরুর গাড়ির চাকা ঠেলতে হবে— কলের গাড়ির চালক হবার দুরাশা এখন থাক – কটা বাজল শ্ৰীশবাবু। শ্ৰীশ। সাড়ে আটটা বেজে গেছে । চন্দ্রবাবু। তা হলে আমি যাই। কিন্তু এই কথা রইল, আমাদের এখন অন্য-সমস্ত আলোচনা ছেড়ে নিয়মিত শিক্ষাকার্ষে প্রবৃত্ত হতে হবে এবং— পূর্ণ। আপনি যদি একটু বমেন চন্দ্রবাবু, তা হলে আমার দুই-একটা কথা বলবার আছে— ኳ